Home / Op-eds and Interviews / Fahmida Khatun / নারীর কর্মক্ষেত্রে ডে-কেয়ার বাধ্যতামূলক করতে হবে – ফাহমিদা খাতুন

নারীর কর্মক্ষেত্রে ডে-কেয়ার বাধ্যতামূলক করতে হবে – ফাহমিদা খাতুন

Published in কালের কন্ঠ on Wednesday, 8 March 2017

fahmida-khatun

এ দেশে নারীরা গত ১০ বছরে অনেক এগিয়েছে। বৈষম্য আগের চেয়ে কমেছে, তবে নারীর চলার পথ এখনো মসৃণ নয়। কিছু প্রতিবন্ধকতায় নারীরা কর্মজীবনের মাঝপথে কর্মক্ষেত্র ত্যাগ করতে বাধ্য হচ্ছে। এসব সমস্যার সমাধান হলে তারা আরো দ্রুত এগিয়ে যাবে। আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে সামনে রেখে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন কর্মজীবী নারীদের সম্পর্কে এসব কথা বলেন।

প্রতিবন্ধকতা বর্ণনায় তিনি বলেন, ‘অন্যতম সমস্যার একটি হলো গণপরিবহনের সমস্যা। এ ছাড়া প্রশিক্ষণের অভাবে নারীরা কর্মক্ষেত্রে যথাযথ মর্যাদা পায় না। আমরা এখন একক পরিবারে বেশি আছি। এমন পরিস্থিতিতে বাচ্চা হলে একজন মায়ের জন্য কর্মক্ষেত্রে মনোনিবেশ করা কঠিন হয়ে পড়ে। আমাদের দেশে ডে-কেয়ার তৈরি করতে সরকার বা বেসরকারি খাত মনোযোগী নয়।’ সরকারকে আইন করে কর্মক্ষেত্রে ডে-কেয়ার বানাতে বাধ্য করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘একটি অফিসে বা কারখানায় ১৫ জনের বেশি নারীকর্মী থাকলেই বাধ্যতামূলক ডে-কেয়ার খুলতে হবে। আবার ছোট মাপের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান হলে কাছাকাছি অনেক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নারীদের জন্য ডে-কেয়ার খোলা বাধ্যতামূলক করতে হবে। এতে একজন কর্মজীবী মাকে শুধু সন্তান দেখভালের জন্য চাকরি ছাড়তে হবে না। ’ তিনি বলেন, ‘এ দেশের নারীরা ১০ বছর আগে যা ছিল এখন তার চেয়ে অনেক ভালো আছে। নারীরা এখন অর্থনীতির মূল ধারায় যোগ দিচ্ছে। এ হিসাব এখনো অনেক কম। ‘ নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে নারীর অংশগ্রহণের বিষয়ে এই গবেষক বলেন, ‘আমাদের দেশে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে নারীর সংখ্যা কম। এ দেশে পরিবার থেকে কর্মক্ষেত্রে সব জায়গাই নারীরা বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। তবে বৈষম্য আগের চেয়ে কমেছে।’

Comments

Check Also

Professor-Rehman-Sobhan

প্রজন্মের পাথেয় – ফাহমিদা খাতুন

বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে পড়াকালে অধ্যাপক রেহমান সোবহানের বৈদেশিক সাহায্য, দারিদ্র্য এবং সরকারি শিল্পোদ্যোগ-বিষয়ক লেখাগুলো পড়েছি। মূলত বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার শিক্ষকদের মাধ্যমেই তাঁর কাজগুলোর সঙ্গে পরিচিত হই।