Home / Op-eds and Interviews / Khondaker Golam Moazzem / গুণগত দিকের ঘাটতি রয়েছে – গোলাম মোয়াজ্জেম

গুণগত দিকের ঘাটতি রয়েছে – গোলাম মোয়াজ্জেম

Published in ভোরের কাগজ on Friday, 2 June 2017

Khondaker-Golam-Moazzem

কাগজ প্রতিবেদক:

সিপিডির সিনিয়র ফেলো ড. গোলাম মোয়াজ্জেম বলেছেন, এটি বড় আকারের বাজেট। সরকার উন্নয়নের জন্য ব্যয় করতে চাইছে, যা ভালো দিক। কিন্তু বড় বাজেটে আয়ের যে দিকনির্দেশনা থাকা উচিত সেই গুণগত দিকের ঘাটতি রয়েছে। ড. মোয়াজ্জেম বলেন, সরকার বড় বাজেট প্রস্তাব করে যে ব্যয় করার চেষ্টা রয়েছে তাকে সাধুবাদ জানাই। তবে এ ব্যয় করতে গিয়ে অর্থ সংস্থানের প্রশ্ন উঠতেই পারে। কেননা, এবারের বাজেটে রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৩৬ শতাংশ, যা বর্তমানে গড় রয়েছে ১৯ শতাংশের মত। তাই এক লাফে এতটা বাড়বে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। তা ছাড়া বাজেটে বৈদেশিক অর্থের আশা করছে সরকার। কিন্তু মনে রাখতে হবে বৈদেশিক অর্থ যথেষ্ট ঋণ হিসেবে আমরা গ্রহণ করেছি। যার সুদ দিতেই বাজটের একটা বিরাট অংশ চলে যাচ্ছে। যদি বিদেশি সহায়তা না আসে তা হলে সরকার কিভাবে অর্থ ম্যানেজ করবেন তা বোঝা মুশকিল। কেননা, সুদজনিত ব্যয়ের কারণে এবং বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়নে আমাদের বিপুল পরিমাণ অর্থ চলে যাচ্ছে। যা কমানো দরকার। তা ছাড়া বড় প্রকল্পগুলোর ধীর গতির কারণে ব্যয় বাড়ছে, যার জন্য অর্থ বরাদ্দ করতে হচ্ছে। বাজেটের অনেকাংশই অবকাঠামো ও অনুন্নয়ন খরচ হচ্ছে। উন্নয়ন খরচ কমে যাচ্ছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা বিষয়ক খাতগুলো উপযুক্ত অর্থ বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সুতরাং বাজেটের ব্যয় কিভাবে আসবে সে দিকে আরো নজর দেয়া দরকার।

Comments

Check Also

দেশের প্রকৃত জনসংখ্যা, খাদ্যশস্য উৎপাদন ও মজুদের যথাযথ তথ্যের সমন্বয় দরকারঃ খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম

নয় মাসে বাংলাদেশে চালের দাম বেড়েছে ৩৭ শতাংশ। এ সময়ে আন্তর্জাতিক বাজারে বেড়েছে মাত্র ৬ শতাংশ। অন্যদিকে অনেক দেশে চালের দাম কমলেও দেশের বাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে। সরকারি হিসাবেই দেশে প্রতিকেজি মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৫২ টাকায়।