Home / CPD in the Media / দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারীকে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত করতে হবে: তৌফিকুল ইসলাম খান

দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারীকে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত করতে হবে: তৌফিকুল ইসলাম খান

Published in বাংলাদেশ প্রতিদিন on Wednesday, 15 March 2017

কর্মক্ষমতায় শীর্ষে বাংলাদেশ

রুকনুজ্জামান অঞ্জন

Bd-pratidin-15-03-17-F-16

তারুণ্য ও কর্মক্ষম জনশক্তির দিক দিয়ে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চেয়ে এগিয়ে। বিভিন্ন গবেষণা ও আন্তর্জাতিক সংস্থার জরিপ অনুযায়ী কর্মশক্তির দিক দিয়ে বাংলাদেশ এমন একটি সুবর্ণ সময় বা ‘গোল্ডেন পিরিয়ড’ অতিক্রম করছে, যা চীন, জাপান, সিঙ্গাপুর, এমনকি ইউরোপ-আমেরিকার অনেক উন্নত দেশকেও পেছনে ফেলেছে। কর্মক্ষমতায় এই বিশেষ লাভবান হওয়ার সুযোগকে ‘জনমিতির মুনাফা’ বা ‘ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ড’ বলা হচ্ছে।

জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ এখন তরুণ জনগোষ্ঠীর রাষ্ট্র। এ অঞ্চলের ৪৫টি দেশের জনসংখ্যাভিত্তিক তথ্য বিশ্লেষণ করে সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশ তাদের মধ্যে সবচেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ট’ হলো কোনো দেশের কর্মক্ষম জনসংখ্যা, অর্থাৎ ১৫ থেকে ৫৯ বছর বয়সী জনসংখ্যার আধিক্য। যখন এই কর্মক্ষম জনসংখ্যা দেশের মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশের ওপরে থাকে, তখন ওই দেশ ডেমোগ্রাফিক বোনাস-কালে অবস্থান করছে বলে ধরা হয়। এই জনসংখ্যা কোনো না কোনোভাবে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করে, যা দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে অবদান রাখে। ইউএনডিপির প্রতিবেদন অনুযায়ী, এ দেশের কর্মক্ষম জনশক্তি ১০ কোটি ৫৬ লাখ, যা মোট জনসংখ্যার ৬৬ শতাংশ। ২০৩০ সালে বাংলাদেশের কর্মক্ষমতাসম্পন্ন মানুষের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ১২ কোটি ৯৮ লাখে। আর ২০৫০ সাল নাগাদ এ সংখ্যা ১৩ কোটি ৬০ লাখে উন্নীত হবে। ফলে ২০৩০ সালে মোট জনসংখ্যার ৭০ শতাংশ মানুষ হবে কর্মক্ষম, যা বিশ্বের যে কোনো দেশের জন্যই সবচেয়ে সুখকর বিষয়। পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আমাদের দেশের মোট জনসংখ্যার গড় বয়স ২৬ বছর। এটি অনেক উন্নত দেশের মানুষের গড় বয়সের নিচে। এর মানে হচ্ছে, আমাদের কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা বেশি। এই যে তরুণ কর্মশক্তি, এটিকে কাজে লাগানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার মাধ্যমে যে উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে, সেখানে মানবসম্পদ দক্ষতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। ’ সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা এই মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক যে নারীশক্তি রয়েছে, তাদেরও উৎপাদন কর্মকাণ্ডে যুক্ত করতে চাই। পাশাপাশি কর্মক্ষম জনশক্তিকে সঠিকভাবে কাজে লাগানোর জন্য দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচি চলমান রয়েছে। ১০০ অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে। এসব অঞ্চলে বিপুল কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। তথ্যপ্রযুক্তি খাতেও আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি। এতে ঘরে বসেও যে-কেউ আউটসোর্সিয়ের মাধ্যমে আয় করতে পারবে। ’ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু যে কর্মক্ষম মানুষের দিক দিয়ে বাংলাদেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে তা-ই নয়, বেশি বয়সী, অর্থাৎ নির্ভরশীল মানুষের হারও চীন-জাপানের তুলনায় অর্ধেক। ইউএনডিপি বলছে, বর্তমানে বাংলাদেশে ৬০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যা মোট জনসংখ্যার মাত্র ৭ শতাংশ, যা চীন, জাপানসহ যে কোনো উন্নত দেশের চেয়েও সুবিধাজনক অবস্থানে রেখেছে বাংলাদেশকে। বিভিন্ন জরিপ ও গবেষণা অনুযায়ী, বর্তমানে চীনে নির্ভরশীল বা ৬০ বছর বয়সী মানুষের হার ১৫ শতাংশের বেশি, যা ২০২০ সালে গিয়ে ১৭ শতাংশে উন্নীত হবে। আর বর্তমানে জাপানের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৩ শতাংশ মানুষের বয়স ৭৫ বছর বা এর চেয়ে বেশি। রেডিও রাশিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জাপানের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মানুষের বয়স ৬৫ বছরের বেশি। ইউরোপের জার্মানি ও ইতালিতে এ সংখ্যা প্রায় এক-পঞ্চমাংশ ছাড়িয়েছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের কর্মক্ষমতা সম্পন্ন মানুষের সংখ্যা ২০৩০ সালে গিয়ে আরও বাড়বে। অবশ্য ওই সময় ৬০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যাও কিছুটা বাড়বে। তখন বাংলাদেশে ৬০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যা দাঁড়াবে ১২ শতাংশে। আর চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো এশিয়ার জায়ান্ট অর্থনীতির দেশগুলো তখন প্রবীণ মানুষের রাষ্ট্রে পরিণত হবে। ফলে ১৫ বছর পর যখন বুড়ো মানুষের ভারে কর্মক্ষমতা হারাবে চীন, জাপান, সিঙ্গাপুর ও কোরিয়া, এমনকি ইউরোপ-আমেরিকার মতো উৎপাদনমুখী দেশগুলো, তখন প্রাপ্ত সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে বিনিয়োগ আর উৎপাদনে তাদের ‘টেক্কা’ দেবে বাংলাদেশ।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষণা ফেলো তৌফিক ইসলাম খান বলেন, বাংলাদেশের কর্মক্ষম মানুষের হার বেশি থাকার এই যে সুযোগ, সেটি যখন কাজে লাগানো যাবে, তখনই এটিকে ‘ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ট’ বা জনমিতির মুনাফা বলা যাবে। আর এই মানবসম্পদ ব্যবহারের জন্য সরকারকে দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। একই সঙ্গে চাহিদা অনুযায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারীকে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত করতে হবে।

Comments

Check Also

State Minister for Posts and Telecommunications Tarana Halim presides over a discussion “HerStory: Women Trailblazers” exhibition held at the EMK Centre on Saturday; March 11, 2017. Energies Group, in collaboration with EMK Centre organised the exhibition to mark International Women’s Day. The framework of the exhibition is a timeline of outstanding women who made lasting contributions in the fields of science, politics, economics, arts and letters Rajib Dhar/Dhaka Tribune

Women’s contributions should be recognised: Dr Fahmida Khatun

Dr Fahmida Khatun, executive director of the Centre for Policy Dialogue, said women’s contributions to agriculture, other informal sectors and households should be recognised.