Home / CPD in the Media / Dr Khondaker Golam Moazzem on BCIM economic corridor

Dr Khondaker Golam Moazzem on BCIM economic corridor

যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়ন যেকোনো দেশের জন্যই আশীর্বাদস্বরূপ। দক্ষিণ-দক্ষিণ সম্পর্ক উন্নয়ন এ গতিকে ভবিষ্যতে আরো সঞ্চালনশীল করবে। তাই অবকাঠামো খাতে যত দ্রুত সম্ভব বিনিয়োগ করা উচিত।

Published in Jugantor on Wednesday, 14 October 2015.

আঞ্চলিক যোগাযোগে বাংলাদেশ
অবকাঠামোয় প্রয়োজন ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা

ইসমাইল আলী

দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে আঞ্চলিক যোগাযোগ শক্তিশালী করার ওপর জোর দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। এজন্য উন্নয়ন করতে হবে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সড়ক ও রেলপথ। সক্ষমতা বাড়াতে হবে সমুদ্রবন্দরেরও। এসব করতে প্রয়োজন হবে বড় অঙ্কের বিনিয়োগ। এডিবির হিসাবে, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর এ নেটওয়ার্কে যুক্ত হতে বাংলাদেশের বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে ১ হাজার ৩৭৭ কোটি ডলার। বাংলাদেশী মুদ্রায় যা ১ লাখ ১০ হাজার ১৬০ কোটি টাকা।

‘রিজিওনাল ট্রান্সপোর্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার: ম্যাপিং প্রোজেক্টস টু ব্রিজ সাউথ এশিয়া অ্যান্ড সাউথইস্ট এশিয়া’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন সম্প্রতি প্রকাশ করেছে এডিবি। ওই প্রতিবেদনেই বিনিয়োগের এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, শ্রীলংকা, কম্বোডিয়া, লাওস, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামের অবকাঠামো উন্নয়নের কথাও বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

এডিবি বলছে, আঞ্চলিক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠায় অবকাঠামো উন্নয়নে সাতটি দেশের জন্য বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে মোট ৬ হাজার ২৬১ কোটি ডলার বা ৫ লাখ ৮৮০ কোটি টাকা। তবে আনুপাতিক হারে অন্যান্য দেশের অবকাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে আনুপাতিক হারে কম। কারণ বাংলাদেশের তুলনায় অন্যান্য দেশের সড়ক ও রেলপথ তুলনামূলক ভালো। বাংলাদেশের চেয়ে বেশি বিনিয়োগ করতে হবে শুধু মিয়ানমারকে। যদিও দেশটির সড়ক ও রেলপথ বাংলাদেশের চেয়ে কয়েক গুণ বেশি।

সড়ক যোগাযোগ উন্নয়নে বাংলাদেশকে কেন বেশি বিনিয়োগ করতে হবে, তারও ব্যাখ্যা দিয়েছে এডিবি। একই প্রতিবেদনে সংস্থাটি বলেছে, আঞ্চলিক সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে এশিয়ান হাইওয়ের রুটগুলো অনুসরণ করতে হবে। তবে বাংলাদেশের সড়ক অত্যন্ত নিম্নমানের। আন্তর্জাতিক মানের (প্রাইমারি) কোনো সড়ক নেই দেশে। চার লেনের কিছু সড়ক থাকলেও সেগুলোর অবস্থা বেশ নাজুক। বাকি সড়কগুলো দুই লেনের, যেগুলো দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণীর।

রেলপথে আঞ্চলিক যোগাযোগ গড়ে তুলতে ট্রান্স-এশিয়ান রুট অনুসরণের কথা বলেছে এডিবি। এক্ষেত্রেও তুলনামূলক বেশি বিনিয়োগ করতে হবে বাংলাদেশকে। কারণ হিসেবে দাতা সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশে রেলপথের সবচেয়ে বড় সমস্যা মিটার গেজ ও ব্রড গেজের ভিন্নতা। পাশাপাশি রেলপথের ভারবাহী সক্ষমতাও বাড়াতে হবে। এছাড়া সমুদ্রপথে পণ্য খালাসে সক্ষমতা বাড়াতে সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করতে হবে বলে জানিয়েছে এডিবি।

বিশ্বব্যাংকের এ তথ্যের সঙ্গে একমত পোষণ করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. শামছুল হক। বণিক বার্তাকে তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ আন্তর্জাতিক করিডোরে যুক্ত হওয়ার জন্য দ্রুত মহাসড়কগুলো উন্নত করছে। পাশের দেশ ভারত, পাকিস্তান এমনকি মিয়ানমারও অ্যাকসেস কন্ট্রোলড (প্রবেশ সংরক্ষিত) সড়ক নির্মাণ করেছে। অথচ বাংলাদেশে এমন একটি সড়কও নেই। একই অবস্থা রেলপথেরও। খুবই নিম্নমানের এসব রেলপথ আন্তর্জাতিক রুটে যুক্ত হওয়ার উপযুক্ত নয়। এ কারণেই বড় অঙ্কের বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে।

তথ্যমতে, আঞ্চলিক সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে উঠলে সড়কপথে কলকাতা থেকে পেট্রাপোল-বেনাপোল দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে যানবাহন। সেখান থেকে খুলনা, ঢাকা হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া দিয়ে ভারতের আগরতলায় যাবে। বাংলাদেশের অংশটির দৈর্ঘ্য ৬৪৮ কিলোমিটার। এর পর দেশটির শিলচর, ইম্ফল হয়ে মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, লাওস হয়ে একটি রুট যাবে ভিয়েতনাম ও চীন। অন্যটি যাবে ব্যাংকক হয়ে কম্বোডিয়ায়।

আঞ্চলিক এ সড়ক নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করতে বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে অতিক্রম করা এশিয়ান হাইওয়ের দুটি রুট আংশিক উন্নয়ন করতে হবে। ৬৪৮ কিলোমিটার সড়ক এশিয়ান হাইওয়ে মানে উন্নীত করতে প্রায় ১ হাজার ১০৬ কোটি ডলার বা ৮৮ হাজার ৪৮০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

রেলপথেও কলকাতা থেকে ঢাকা, আখাউড়া-আগরতলা হয়ে ইম্ফল যুক্ত হবে। সেখান থেকে একটি রুট মিয়ানমার, ভিয়েতনাম হয়ে চীনের সঙ্গে যুক্ত হবে। অন্য রুটটি হবে মিয়ানমার থেকে থাইল্যান্ড, ব্যাংকক হয়ে কম্বোডিয়া পর্যন্ত। বাংলাদেশ অংশের ২৬১ কিলোমিটার রেলপথ উন্নয়নে বিনিয়োগ প্রয়োজন ১৬১ কোটি ডলার বা ১২ হাজার ৮৮০ কোটি টাকা।

সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের সুপারিশের পেছনে বেশকিছু কারণ উল্লেখ করেছে এডিবি। সংস্থাটি বলছে, কলকাতা, চট্টগ্রাম ও ইয়াঙ্গুন সমুদ্রবন্দর তিনটি কাছাকাছি। তবে কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ে এগুলোর সক্ষমতার ঘাটতি রয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক চাহিদা পূরণে এগুলো খুব বেশি অবদান রাখতে পারবে না। পাশাপাশি সরু চ্যানেল ও কম গভীরতার কারণে বড় জাহাজ (মাদার ভেসেল) ভিড়তে পারে না বন্দরগুলোয়। ফলে ছোট জাহাজে (ফিডার ভেসেল) কনটেইনার আনতে হয় সমুদ্রবন্দরে। এতে পণ্য ট্রান্সশিপমেন্ট খরচ অনেক বেড়ে যায়। তবে সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্রবন্দর হলে মাদার ভেসেলও সরাসরি আসতে পারবে। তখন আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এটি। এক্ষেত্রে ব্যয় হবে ১১০ কোটি ডলার বা ৮ হাজার ৮০০ কোটি টাকা।

এ নেটওয়ার্কের আওতায় থাকা অন্যান্য দেশের বিষয়ে এডিবি বলেছে, ভারতের সড়ক উন্নয়ন করতে হবে ১ হাজার ৬২৩ কিলোমিটার ও রেলপথ ৫১১ কিলোমিটার। এতে দেশটির বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে যথাক্রমে ১৫৭ কোটি ও ২১০ কোটি ডলার। এছাড়া দেশটির সমুদ্রবন্দর উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে হবে ২২১ কোটি ডলার।

শ্রীলংকার সড়ক বা রেল অবকাঠামোর কোনো সংযোগ নেই। তবে দেশটির সমুদ্রবন্দর উন্নয়নে ২০১ কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে হবে বলে জানিয়েছে এডিবি।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে কম্বোডিয়ার ৪৫ কিলোমিটার সড়ক ও ৬৯৬ কিলোমিটর রেলপথ উন্নয়নের প্রয়োজন পড়বে। এজন্য বিনিয়োগ করতে হবে যথাক্রমে সাড়ে ৮ কোটি ও ১২৮ কোটি ডলার। থাইল্যান্ডের ৫৬৯ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়নে ২২৫ কোটি ও ৮২৪ কিলোমিটার রেলপথ উন্নয়নে ১৫৪ কোটি ডলার বিনিয়োগের প্রয়োজন হবে। দেশ দুটির বন্দর উন্নয়নের প্রয়োজন হবে না। তবে সম্প্রসারণ করতে হবে। এতে কম্বোডিয়ার ৯ কোটি ও থাইল্যান্ডের ৬ কোটি ডলার দরকার হবে।

ভিয়েতনামের ১৮০ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়নে ৪১ কোটি ও ১২৯ কিলোমিটার রেলপথ উন্নয়নে ৭৯০ কোটি ডলার প্রয়োজন হবে বলে হিসাব করেছে এডিবি। আর লাওসের ১ হাজার ৪২ কিলোমিটার সড়ক ও ১ হাজার ১২৫ কিলোমিটার রেলপথ উন্নয়নে প্রয়োজন পড়বে যথাক্রমে ৭৮ কোটি ও ১ হাজার ১৪৭ কোটি ডলার।

মিয়ানমারের ১ হাজার ৫৯৩ কোটি কিলোমিটার সড়ক ও ৪ হাজার ২৪৭ কিলোমিটার রেলপথ উন্নয়ন করতে হবে। এতে বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে যথাক্রমে ১৫৯ কোটি ও ৭৮৬ কোটি ডলার। দেশটির বন্দর উন্নয়নে লাগবে ৫৬৬ কোটি ডলার।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর বড় অঙ্কের এ বিনিয়োগের অর্থনৈতিক সুফলও পরিমাপ করেছে এডিবি। সংস্থাটির হিসাবে, আঞ্চলিক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠার ফলে পরিবহন ব্যয় ৫ শতাংশ কমলে ২০৩০ সাল নাগাদ দক্ষিণ এশিয়ার প্রকৃত আয় বাড়বে ৫ হাজার ৯০০ কোটি ডলার; যা জিডিপির দেড় শতাংশ। আর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর প্রকৃত আয় বাড়বে ৩ হাজার কোটি ডলার বা জিডিপির ১ শতাংশ। তবে পরিবহন খরচ ১৫ শতাংশ কমলে দক্ষিণ এশিয়ার আয় বাড়বে ২৪ হাজার কোটি ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ১১ হাজার ৮০০ কোটি ডলার; বিনিয়োগের চেয়ে যা কয়েক গুণ।

এডিবির এ হিসাবের সঙ্গে একমত পোষণ করে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) অতিরিক্ত গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়ন যেকোনো দেশের জন্যই আশীর্বাদস্বরূপ। দক্ষিণ-দক্ষিণ সম্পর্ক উন্নয়ন এ গতিকে ভবিষ্যতে আরো সঞ্চালনশীল করবে। তাই অবকাঠামো খাতে যত দ্রুত সম্ভব বিনিয়োগ করা উচিত।

Comments

Check Also

National Budget FY2017-18 Post-Approval Observations 01

Time to be vigilant, not to be complacent

There is hardly any room for us to be complacent, rather we need to be vigilant with every component of the fiscal framework. However, careful steps need to be taken while implementing the budget as the changed financial structure will have to depend more on domestic resources.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *