Latest
Home / CPD in the Media / Professor Rounaq Jahan’s book on political parties reviewed

Professor Rounaq Jahan’s book on political parties reviewed

Professor Rounaq Jahan’s book on political parties reviewed, published in The Daily Star on Monday, 13 July 2015.

Political Parties in Bangladesh: Challenges of Democratization

Author: Rounaq Jahan Dhaka: Prothoma Prokashan, 2015, pp. 212

Ahrar Ahmad

political_parties

Bangladesh abounds in paradoxes.  It has confounded many developmental pundits by maintaining a fairly brisk pace of economic growth while continuing to be mired in dysfunctional politics, rampant corruption, and routine bureaucratic inefficiencies.  It won a long and intense struggle to gain its independence, establish its identity based on cultural and linguistic markers, and commit itself to some secular and humanistic ideals, only to see the creeping shadow of disillusionment and rising religious assertiveness complicating the nation’s previous clarity and confidence about itself.  In a country where the Prime Minister and the Leader of the Opposition (since 1991), and the Speaker of the House (since 2014) have all been women, it is also true that women face objectification and prejudice throughout the land that is pervasive, crude and, often, violent.

Professor Rounaq Jahan’s latest book refers to a few other paradoxes more explicitly political in nature.But before we discuss the book, it should be noted that the project itself is situated within a more apparent conundrum.  It is abundantly clear that Bangladesh is care deeply, perhaps obsessively, about politics.The people, particularly the highbrow classes,talk incessantly and cleverly about political matters. There is also a long and rich intellectual/creative tradition that is closely associated with the region. But strangely, perhaps lamentably, this passion for politics has neither been informed by, nor reflected in, much serious scholarly effort that has been dedicated to its study.  Consequently, there is an academic vacuum in the field that is quite inconsistent with the country’s own history, opportunities and needs.

Standing against that trend, and seeking to redress that imbalance, have been a few scholars in the social sciences and the humanities (economists are exempt from this category because many of them have pursued lively research agendas), who have remained intellectually engaged and productive.  Dr. Rounaq Jahan has been a pre-eminent member of that small band of the faithful, and has continued to generate work on issues related to development, women, parliament, and so on, that is both sophisticated and relevant. Her current book serves to underscore her reputation as one of the premier political scientists working, and consistently publishing, on Bangladesh today.

The book is, ostensibly, about political parties and democracy in Bangladesh but is actually framed within a wider context of an apparent disjuncture between the country’s stated, and supposedly enthusiastic, commitment to democracy on the one hand, and the many customs and practices seemingly inherent in the system itself that seem to threaten the very essence of that ideal.

Thus, its leaders speak fulsomely, and with much chest-thumping puffery, about the need for democracy, congratulate themselves on their struggles and sacrifices to protect it, encourage their supporters to uphold it, and warn against dark conspiracies that seek to undermine it.

At the same time, some of the habits of thought and action embraced by these “fighters for democracy”have more often served to jeopardize the practice of democracy rather than further it. They have:

– lowered the level of political discourse through employing a rude, polarizing, inflammatory rhetoric that assumes that all “opponents” are “enemies”, makes it into a self-fulfilling prophecy, and ensures that no compromise can be possible;

– created an intimidating environment for writers and journalists through political threats and judicial actions which have a “chilling effect” on free speech;

– cultivated a culture of impunity so that the rule of law is only selectively applied;

– manipulated the apparatus of the State, and politicized it’s institutions,to advance partisan advantages in ways that are often arbitrary and sometimes vicious (which has led to a palpable erosion of civil rights and liberties in the country);

– devalued the Parliament with opposition parties routinely boycotting many, if not most, of its sessions and, in the process, turning the streets into the primary platform to vent political disagreements (which inevitably leads to costly economic disruptions, deeply frustrating public inconveniences, and bloody political encounters); and- problematized the electoral system itself through pursuing a win-by-any-means strategy, or if-I-do-not-win-I will-not-play tactics, that clouds the credibility and the moral authority of the entire exercise.

Professor Jahan explores this tension through the perspective of political parties.  In the process she offers a broad overview of political parties in Bangladesh in the context of three eras which she has identified – between 1972 and 1975 when Bangladesh transformed itself into a one-party state, 1975 and 1990 when state sponsored parties launched by erstwhile military rulers controlled the system, and the third after 1991 with regular (if, at times, controversial) electoral contests that led to the emergence of the current system of two-party dominant clusters that commands the political landscape of the country.

She goes on to delineate the basic policy orientations and ideological inclinations that differentiate the parties, examine their structures and internal procedures, scrutinize their leadership and membership base as they have evolved over time, analyze their electoral strategies and outcomes, and investigate both the internal factions and the lived experience of the parties at the grass-roots level.  The tone is objective and judicious, the information substantive and well organized, the observations astute and insightful.

But Professor Jahan goes beyond providing merely a competent and comprehensive narrative about the parties she has chosen to investigate (the Awami League, Bangladesh Nationalist Party, Jatiyo Party and Jamat-i-Islami party).  She also raises some other issues (paradoxes) that are germane to the notion of democracy itself, and its relevance and survival in Bangladesh.  Several are worth pointing out.

For example, it is generally assumed by most political theorists that competing political parties are an indispensable part of the democratic process and the longer they have functioned, the stronger become the prospects of democracy; that electoral contests are expected to facilitate the consolidation of democratic principles and practices; and that an essentially two-party dominant system (with minor parties allied with them) should lead to greater democratic stability than a plethora of parties that can generate unnecessary, and often unwieldy, complexity.  But, the extent to which these assumed relationships have been expressed, or realized, in Bangladesh is very much an open and intriguing question. In spite of enjoying almost all the advantages that are supposed to lead to the institutionalization of democracy in the country, Bangladesh continues to flounder at various levels and expose its democratic “deficits” in many self-evident ways.

One answer to that enigma is explored by Professor Jahan.  She poses this question rather provocatively – can parties really be expected to encourage and support the ideals of democracy at the national level when the parties themselves are indifferent to democratic norms and practices in terms of their own structures and procedures? Can democracies be really safe, or at all functional, in the hands of institutions that are organized in a fundamentally undemocratic manner? How can democracy flourish if the parties which advocate it do not practice what they preach?

Professor Jahan’s book deals with this issue at some length and analytical rigor. The picture that emerges is not pretty.  Party leadership remains in the hands of single individuals who dominate it for decades often spawning dynastic inheritance of the position.  The council meetings (the highest deliberative body of the parties) are not held regularly, and when they are, the meetings are reduced to opportunities for sycophancy and rubber-stamping of the leader’s wishes rather than meaningful debate or discussion. Parties are ridden with internal factions which necessitates constant bargaining that leads to a further strengthening of the leader’s position because only s/he can negotiate/garner their support through spreading the rewards of sprawling patronage networks.  Political campaigns followed by the parties deliberately utilize street agitation, intimidation, and the denial of political space to others. These strategies are reinforced by the increasing influx of money and mastans (thugs) in the political process.

Moreover, the parties typically ignore their own constitutions in terms of leadership selection, candidate nomination and policy setting, with the principal leader (and his/her chosen underlings) making most decisions.  They are equally casual about meeting the stipulations demanded by the RPO (Representation of the People Order, 1972, with subsequent amendments) in terms of achieving diversity (both women and minorities are woefully under-represented), campaign finance regulations, or requirements of transparency.  None of the parties have established procedures through which disagreements can be handled, or conflicts resolved, either within the parties or with external forces.  There is little wonder then that such institutions could not possibly be the guardians and exemplars of democratic governance, and their rhetoric about their respect for, or commitment to, democracy is probably cynical and hypocritical froth.

But, while the book describes well, it does not explain as effectively.  Several questions come to mind.  First, why is it that the situation has developed in this direction?  What is it that is so unique about the party system in Bangladesh that compels this kind of behavior?  Is it political culture, historical quirks, leadership failures, social structure, or something else?  Some explanatory framework would have greatly added to the value of the book.

Second, can we really refer to these institutions as political parties with philosophical and policy differences that are clear and specific (except for the Jamaat),or as groups formed around a dominant leader whose personal interests, ambitions and ego drive the group and lead to ideological shape-shifting, opportunistic alliances and factional bickering? (It should be borne in mind that it is entirely possible for the same person to belong to different governments in power, and it is typical to have break-away factions claim the name of the original party with the names of the new leaders in parentheses).  In other words, are political parties in Bangladesh merely extensions of personalities rather than formally systematized structures that are supposed to follow the organizational rules and precedents that are usually, and perhaps universally, acknowledged?

Third, can we really discuss the patronage networks through which party leaders seek to secure their positions and extend their authority without reference to the pervasive patron-clientelism that defines a rentier state (hence the desperate scramble to gain governmental power), or the hierarchies and behavior patterns of the semi-feudal class structure that is so entrenched in rural Bangladesh?  Thus, are political parties really contravening the democratic aspirations and commitments of the people, or are they merely reflecting, and in some ways reinforcing, the traditional modes of personal conduct and social transactions that are intrinsic to the system itself? Can parties be really expected to behave differently from the way in which other institutions, work-places or even families are organized, the way in which wealthier classes treat the less fortunate, or the way in which women are usually disregarded and made invisible?

Such minor quibbles not withstanding, Dr. Jahan’s book is an impressive contribution to the (admittedly meager) literature on political science in Bangladesh.  She presents her case with care, precision and authority.  Her style is crisp and steady.  Her message is sobering. She does not dazzle us (there are far too many in Bangladesh who try to), but she enlightens, provides a fine example of scholarly research (which, hopefully, may also inspire younger academics), and provokes us to think.  For all that, Dr. Jahan deserves our gratitude and, more importantly, deserves to be read and discussed.

The reviewer is a senior faculty at Black Hills State University, Spearfish, SD 57799.

He can be reached at ahrar.ahmad@bhsu.edu  

 

Published in Prothom Alo on Saturday, 25 July 2015.

পঠন–পাঠন
রাজনৈতিক দল ও অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রচর্চা

আল মাসুদ হাসানউজ্জামান

বিশিষ্ট রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক রওনক জাহানের Political Parties in Bangladesh: Challenges of Democratization একটি সময়োপযোগী প্রকাশনা। রাজনৈতিক দলের ওপর গবেষণা এ জন্য অত্যন্ত জরুরি। তবে এ দেশে রাজনৈতিক দল বিষয়ে স্বল্পসংখ্যক গবেষণাকর্মই সম্পাদিত হয়েছে এবং গভীরতর সূক্ষ্ম, অনুসন্ধানমূলক গবেষণার অভাব রয়ে গেছে। এই গবেষণা ও বইটি এ অভাব পূরণের সুচারু প্রয়াস। এ জন্য রওনক জাহানকে অভিনন্দন।

ছয়টি অধ্যায়ে বিন্যাসকৃত আলোচ্য বইটির ভূমিকায় লেখক রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক উন্নয়ন তাত্ত্বিকভাবে ব্যাখ্যা করে দ্বিতীয় অধ্যায়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-পরবর্তীকালে বিভিন্ন শাসনামলের তিনটি পর্বে দলীয় ব্যবস্থার প্রকৃতি নির্ণয় করেছেন। এভাবে বর্ণিত হয়েছে ১৯৭২-৭৫ পর্যন্ত এক দলের প্রাধান্য থেকে একদলীয় ব্যবস্থা, ১৯৭৫-৯০ সময়ে রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় সামরিক শাসনামলে দল গঠন এবং ১৯৯১ থেকে বর্তমান পর্যন্ত দ্বিদলীয় প্রাধান্যে দ্বন্দ্বমূলক রাজনৈতিক পরিসর। এরপর আলোচনায় এসেছে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর বৈশিষ্ট্য, অভ্যন্তরীণ দলীয় গণতন্ত্রচর্চা, স্থানীয় পর্যায়ে দলীয় রাজনীতি এবং বিভিন্ন মানদণ্ডের ভিত্তিতে গণতন্ত্রচর্চার মাত্রা যাচাইকরণ। উপসংহারে উল্লেখ করা হয়েছে গবেষণায় প্রাপ্ত ফল ও সুপারিশমালা।

গণতন্ত্রচর্চার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দলের অপরিহার্য ভূমিকা আর অত্যাবশ্যকতা সর্বজনবিদিত; দেশের রাজনৈতিক ব্যবস্থা ও বহুমাত্রিক প্রক্রিয়ায় রাজনৈতিক দলের সংশ্লিষ্টতা এবং দলীয় কর্মকাণ্ড নাগরিক জীবনকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রভাবিত করছে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার চালিকাশক্তি হচ্ছে রাজনৈতিক দল ও রাজনৈতিক ক্ষমতার মূল হাতিয়ার।

রাজনৈতিক দলের সম্প্রসারিত ভূমিকার কারণে ডেমোক্রেসিকে ‘পার্টিক্রেসি’ হিসেবে ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। ১৯৬০–এর দশকের শেষার্ধে লুই আর্মস্ট্রং পার্টিক্রেসি শব্দটি ব্যবহার করেন। ‘পার্টিক্রেসি’ বস্তুত রাজনৈতিক দলের অতি ভূমিকা ও ব্যাপকতর প্রভাবেরই পরিচায়ক। নেতিবাচক অর্থে দেখতে গেলে যেখানে জনগণ নীরব ভূমিকাধারী বা দর্শকের ভূমিকায় আর রাজনৈতিক দল প্রতিনিধিত্ব ও শাসনের ক্ষেত্রে তার একচেটিয়াত্ব বিস্তার করে চলেছে।

রাজনৈতিক দল ও বিষয়টি পশ্চিমা উদ্ভূত। পশ্চিমা উদারনৈতিক গণতন্ত্রে দল গঠনের ক্ষেত্র ও উদ্ভবের প্রেক্ষাপট আর বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের রাজনৈতিক দলের ইতিহাস, গঠন ও বিকাশ ভিন্ন। এ জন্য এসব দেশের দল-গবেষণার ক্ষেত্রে পশ্চিমা ধারণার পূর্ণাঙ্গ প্রয়োগ সামঞ্জস্যপূর্ণ হবে না। ইউরোপীয় ধ্রুপদি পার্টি মোড, মরিস ডুভারজারের মাস-বেস-পার্টি বা কার্শহেইমারের ক্যাচ-অল পার্টি গঠন আমাদের মতন কাঠামোতে অবিকলভাবে খাপ খাওয়ানো সম্ভব নয়। আমাদের দেশের ক্রান্তিকালীন পর্যায়ে যে বহুমাত্রিক চ্যালেঞ্জ, সমস্যার সংকট প্রত্যক্ষ করা হচ্ছে, সেই প্রেক্ষাপটকে বিবেচনায় এনে অনুসন্ধান আবশ্যক হয়। এ জন্য রাজনৈতিক দলের সমাজতত্ত্ব প্রয়োগ করে গবেষণা সম্পাদন গুরুত্বপূর্ণ।

তবে বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক দলের তাত্ত্বিক ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে সমরূপতা রয়েছে। যেমন: রাজনৈতিক সামাজিকীকরণ, স্বার্থ জ্ঞাপন, স্বার্থ সংরক্ষণ আর রাজনৈতিক যোগাযোগ যাকে পলিটিক্যাল ইনপুট কাজ বলা হয়। বস্তুত, গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা নির্মাণের জন্য আবশ্যক কর্ম সম্পাদন নির্ভর করে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রকৃতি আর দলীয় ব্যবস্থার কার্যকারিতার ওপর। এ ক্ষেত্রে দলের প্রাতিষ্ঠানিকায়নের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয় এবং সক্রিয় দল-ব্যবস্থার সঙ্গে রাষ্ট্রের রাজনৈতিক ব্যবস্থার ইতিবাচক পারস্পরিক সম্পর্ক পরিমাপ করা হয়।

আসলে রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় রাজনৈতিক দল, নির্বাচকমণ্ডলীর সঙ্গে দল, সরকার আর বিরোধী দলে রাজনৈতিক দলের যে ভূমিকা, তা পালনে রাজনৈতিক দলের সংগঠন থেকে প্রতিষ্ঠানে পরিণত হওয়ার প্রক্রিয়াটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যার সফল পরিণতি হচ্ছে রাজনৈতিক দলের প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ।

এ ক্ষেত্রে অনুসন্ধান ও পরীক্ষণের বিষয়গুলো হচ্ছে সমাজের গভীরে রাজনৈতিক দল ও দলীয় ব্যবস্থার শিকড় কতখানি প্রোথিত হয়েছে, তার নির্ণয় এবং দলের আদর্শ ও কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাত্রা, দলীয় নেতৃত্ব, কাঠামো, দলীয় স্বাতন্ত্র্য, সংহতি, স্বকীয়তা, সাংগঠনিক দৃঢ়তা, দল ও জনগণ, দল ও সুশীল সমাজ সম্পর্ক এবং গঠনতন্ত্র মোতাবেক কর্ম সম্পাদনের পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণ।

এ দেশে সংসদীয় কাঠামো চালু থাকলেও এর সুষ্ঠু কার্যকারিতা না থাকায় সরকারের কর্তৃত্ববাদী মনোভাব এবং বিরোধী দলের বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতাসহ নেতিবাচক ভূমিকা অব্যাহত রয়ে গেছে। এভাবে জন-ইস্যুর চেয়ে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলের স্বার্থ উদ্ধারে অব্যাহত-লাগাতার হরতাল হয় এবং এসব জনবিচ্ছিন্ন নেতিবাচক কর্মসূচি ক্রমান্বয়ে সহিংস ও নৈরাজ্যময় হয়ে যায়। জনজীবন ও তার নিরাপত্তা চরম হুমকিতে পড়ে। ক্রমাগত সহিংসতা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি কখনো সুষ্ঠু দলীয় ব্যবস্থা নির্দেশ করে না।

রওনক জাহানের গবেষণায় লক্ষণীয় হয়েছে যে নব্বই-পরবর্তী থেকে এ দেশে দ্বিদলীয় প্রভাবাধীনে এবং জোটবদ্ধভাবে রাজনীতি চর্চিত হচ্ছে। তবে দলের অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রচর্চার সীমাবদ্ধতা রয়েছে এবং রাজনীতি দুর্বৃত্তদের করায়ত্ত হয়েছে। দলের অভ্যন্তরীণ কাঠামোতে সমাজবিজ্ঞানের ভাষায় অর্জিত প্রক্রিয়ার বদলে আরোপিত প্রক্রিয়া প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। ‘এক-এগারো’-পরবর্তী সময়ে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোতে শীর্ষ নেতৃত্বের কর্তৃত্ব অধিকতর সুসংহত ও সুদৃঢ় হয়েছে। দলে অরাজনৈতিক উপাদানের অনুপ্রবেশ ও প্রভাব বিস্তার ঘটেছে, যা নির্বাচনী মনোনয়নে দৃশ্যমান হয়েছে। রাজনীতি ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় ব্যবসায়িক স্বার্থের প্রাধান্য অব্যাহত রয়েছে এবং রাজনীতির বাণিজ্যকরণ ঘটছে। সেই সঙ্গে আছে অস্বচ্ছ রাজনৈতিক অর্থায়ন।

বর্ণিত পার্টিক্রেসির নেতিবাচক প্রবণতার প্রেক্ষাপটে দলীয় জবাবদিহি বা দায়িত্বশীলতার প্রসঙ্গটি আসে। সাম্প্রতিক কালে উন্নয়নশীল বিশ্বে দলীয় জবাবদিহির জন্য রাজনৈতিক দলকে আইনি কাঠামোয় আনা এবং কাঠামোগত সংস্কারের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশে রাজনৈতিক দল ও কর্মকাণ্ডকে আইনি প্রক্রিয়ায় এনে দায়িত্বশীলতা আনয়নের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ জন্য গণপ্রতিনিধিত্বশীল আদেশ তথা আরপিওতে সংস্কারসাধন এক উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ। এতে রয়েছে নির্বাচনে ইচ্ছুক রাজনৈতিক দলের নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বাধ্যতামূলক নিবন্ধন, গণতন্ত্রসম্মত গঠনতন্ত্র রচনা, অর্থায়ন ও নির্বাচনী ব্যয়ের ক্ষেত্রে দল ও সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর আবশ্যিক তথ্য প্রকাশ, দলীয় আয়-ব্যয়ের তথ্য উন্মুক্তকরণ ইত্যাদি। তবে অদ্যাবধি গণপ্রতিনিধিত্বশীল আদেশের যথাযথ অনুসরণ ও সুষ্ঠু প্রয়োগ দৃশ্যমান হয়নি।

রওনক জাহানের বইটিতে বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর গঠনতন্ত্র অনুসারে দলীয় কাঠামোর বিন্যাস, নেতৃত্ব নির্বাচন, দলীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়া, নির্বাচনে দল ও প্রার্থীর অর্থায়ন, নির্বাচনী মনোনয়নদান, দলে নারী ও সংখ্যালঘুদের প্রতিনিধিত্ব, বাৎসরিক আয়-ব্যয়, হিসাব দাখিল ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রচলিত আরপিও বিধিবিধান ও প্রকৃত চর্চার ক্ষেত্রে বিস্তর পার্থক্য এবং অসংগতি যথাযথ ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ, তত্ত্ব ও তথ্যের মাধ্যমে সুচারুরূপে উদ্ঘাটন করা হয়েছে। তবে অনেক ক্ষেত্রেই প্রাইমারি উৎস থেকে তথ্য পাওয়ার সীমাবদ্ধতা রয়ে গেছে, যা অবশ্য লেখক বইয়ের মুখবন্ধে উল্লেখ করেছেন। গবেষণার জন্য চারটি রাজনৈতিক দল: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতকে বেছে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশের দীর্ঘ সময়ে রাজনীতিতে বামপন্থী দলগুলোর সরব অংশগ্রহণের প্রেক্ষাপটে একটি বামপন্থী দলকে গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত করলে গবেষণা আরও প্রতিনিধিত্বমূলক হতে পারত বলে মন্তব্য করা যায়।

উল্লেখ করা যেতে পারে যে রাজনৈতিক দল-ব্যবস্থায় অন্তর্দলীয় ও আন্তদলীয় সম্পর্ক গণতন্ত্রায়ণ ও রাজনীতিচর্চাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। যখন শুধু রাজনৈতিক ক্ষমতা আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার মূল নিয়ামক হয়ে ওঠে, তখন এ ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা হিংসাত্মক ও সহিংস হয়ে যায়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে যেখানে নির্বাচনী গণতন্ত্রসহ রাষ্ট্রের মৌল বিষয়ে ঐকমত্যহীনতা রয়েছে, সেখানে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে সহিংস ও অসাংবিধানিক পন্থাই অনুসৃত হয়ে থাকে, যা আমরা আন্তদলীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ করেছি। আলোচ্য বইটিতে অন্তর্দলীয় বিষয়াদি বিভিন্ন ডাইমেনশন থেকে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। তবে আন্তদলীয় সম্পর্কের উপাদানগুলো গণতন্ত্রায়ণের সমস্যার অন্যতম প্রভাবক কিনা তার পরীক্ষণ বইটিতে পর্যালোচনার দাবি রাখে।

যা হোক, আলোচ্য বইটিতে গত তেতাল্লিশ বছরে বাংলাদেশে দলীয় ব্যবস্থার বিকাশ এবং রাজনৈতিক দলে গণতন্ত্রায়ণের চ্যালেঞ্জগুলো গভীরভাবে বিশ্লেষিত হয়েছে। যদিও এ দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনগুলো দলীয় নেতৃত্বেই হয়, তথাপি দলীয় কাঠামোতে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় ও প্রাতিষ্ঠানিকায়নে একধরনের অবক্ষয় বিরাজমান। প্রধান দলগুলোর মূল লক্ষ্য রাষ্ট্রক্ষমতা দখল হওয়ায় সুবিধা প্রদানের বিনিময়ে নিজ নিজ সমর্থনের ভিত্তি সম্প্রসারণ তাদের মতাদর্শ ও নীতির সঙ্গে আপসকামিতা প্রকাশ করে। রাষ্ট্রীয় সম্পদের ওপর নিয়ন্ত্রণের প্রতিদ্বন্দ্বিতা মক্কেলধর্মী সম্পর্ক, দুর্নীতি ও সহিংসতার প্রসার ঘটায়। ফলে রাজনৈতিক দলের ঐতিহ্যিক কর্মকাণ্ড পালন ক্ষতিগ্রস্ত হতে থাকে। গণতন্ত্রায়ণে উত্তরণের জন্য লেখক রাজনৈতিক দলগুলোকে অগণতান্ত্রিক আচরণ পরিহার, নিজ পক্ষ ও প্রতিদ্বন্দ্বীর বিপক্ষে রাষ্ট্রীয় কর্তৃপক্ষ ও সম্পদের ব্যবহার বন্ধকরণ, জাতীয় সংসদ বয়কটের সংস্কৃতির অবসান, অন্তঃ ও আন্তদলীয় দ্বন্দ্ব নিরসনে সহিংসতা পরিত্যাগ, দলীয় সংগঠনকে সরকার থেকে পৃথক্করণ, ব্যবসায়িক স্বার্থের পরিবর্তে সংখ্যাগরিষ্ঠ সামাজিক গোষ্ঠীসহ নারী ও প্রান্তিক গোষ্ঠীর জন্য বিস্তারিত কার্যক্রম গ্রহণ এবং দলে অভ্যন্তরীণ গণতন্ত্রচর্চার ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন।

বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক গতি–প্রকৃতির সুষ্ঠু ব্যাখ্যার জন্য দল ও দলীয় ব্যবস্থার ওপর সার্বিক ও গভীরতর গবেষণা ও ফলোআপ পঠন–পাঠনের সুষ্ঠু পদ্ধতি প্রয়োগের মাধ্যমে সম্পাদন করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে রওনক জাহানের গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্য, সমস্যা চিহ্নিতকরণ ও সমাধানের পরামর্শ বিশেষ তাৎপর্য বহন করছে। অধ্যাপক জাহানের রচিত প্রতিটি প্রবন্ধ, গবেষণাকর্ম ও বই এ দেশের সমাজবিজ্ঞান ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানের জন্য একাডেমিক সম্পদ হিসেবে রয়েছে। এ ক্ষেত্রে আলোচ্য বইটি আরেকটি মূল্যবান সংযোজন।

পলিটিক্যাল পার্টিজ ইন বাংলাদেশ: চ্যালেঞ্জেস অব ডেমোক্রেটাইজেশন। লেখক: রওনক জাহান, প্রথমা প্রকাশন ২০১৪।

আল মাসুদ হাসানউজ্জামান: অধ্যাপক, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

Comments

Check Also

UC Berkeley lecture on Secularism in Bangladesh by Rounaq Jahan

CPD Distinguished Fellow Professor Rounaq Jahan delivered a public lecture on “The Erosion of Secularism …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *