Latest
Home / CPD in the Media / Government employees’ pension scheme should not be counted as part of the social safety net: Towfiqul Islam Khan

Government employees’ pension scheme should not be counted as part of the social safety net: Towfiqul Islam Khan


 

Published in The Daily Star on Wednesday, 27 April 2016

Social Protection Strategy and Budget 2016

roundtable_6

Recently Prothom Alo in association with the National Forum for Social Protection (NFSP), Manusher Jonno Foundation and DFID organised a roundtable on “Social Protection Strategy and Budget 2016”. Here we publish a summary of the discussions. — Editor

 

Abdul Quayum

Associate Editor, Prothom Alo & Moderator of the Session

Today, we will discuss on the social protection strategy and the budgetary allocation for this sector. There are many social protection programmes in the country. We can make these interventions more effective by ensuring proper monitoring and coordination. It will reduce overlapping and leakage problem.

Our budgetary allocation for social protection programmes is not adequate. The government needs to increase it. At the same time, we have to ensure that the allocated fund reach the beneficiaries in a transparent and regular manner.

 

Rasheda K Choudhury

Director of Campaign for Popular Education and convener of NFSP

We can increase allocation for social safety nets by reducing corruption and violence against women. Corruption eats up 2 percent of GDP and violence against women also costs a similar percentage of GDP. The government should also not increase the allocation for unproductive sectors.

From today’s progamme we want to urge the honourable Planning Minister to introduce mid-day meals in schools, as it helps improve the quality of education. It will be very beneficial. It should be seen as an investment and we will get a return in future.

We should expand our indicators of poverty. We always emphasise on income poverty.  There are some areas, for example Sylhet, where the income level is high but all the social indictors are low. In our social protection programmes we should focus on these social indicators of poverty.

 

Shaheen Anam

Executive Director, Manusher Jonno Foundation

The government has allocated 2.19 percent of the GDP for social protection. We have to ensure that the poor people get maximum benefit from this fund. DFID along with some other partners such as UNDP, Australian Aid, WFP have signed a MoU with the government in this regard. Manusher Jonno Foundation has been entrusted with two particular responsibilities. It will do policy advocacy following the feedbacks from the poor people on the social protection programmes. We have established National Forum for Social Protection. There are two sides of the social protection programmes. One is to support people who need it for whole life such as elderly persons. Another is time bound. These people need support for a particular time to graduate from extreme poverty. We are also trying to prepare an effective grievance mechanism to address various weaknesses of the social protection programmes.

 

M M Akash

Professor, Department of Economics, Dhaka University

Currently, at least four crore people live below the poverty line in Bangladesh. But the number may go up to 8-11 crore if $2 a day is taken as the poverty line.

First, I will highlight the challenges of the social protection strategy. In Bangladesh around 85 percent employment happens in informal sectors where there is no provision of pension and job security. The government provides some funds to the poor people through various allowance mechanism. But these are inadequate in terms of both number of recipients and amount of the money. We need to spread the coverage of the protection scheme as well increase the allowance amount. That’s why the government needs allocate more funds in the budget for this sector.

The government carries out its social protection programmes predominantly in rural areas. The problem of urban poor gets little attention. They suffer from high rent, sudden hike in prices of necessary goods, lack of urban amenities, insecurity and so on. We need to think about introducing ration system for these poor people.

Twenty three ministries operate 145 social protection programmes in the country. There are issues of overlapping, corruption, lack of coordination that need to be addressed seriously to get the best result of these programmes. There is a reform proposal in the strategy paper that can be a starting point.

Between 25 percent and 50 percent of the state support does not reach the real recipients because of corruption, wrong targeting and leakage. As the complaint system is very weak we do not get real feedback from the grassroots.

The government allocated Tk 16,000 crore in fiscal 2009-10 and Tk 37,000 crore in fiscal 2015-16 for social safety nets. The daily average per capita allocation stood at Tk 5 for the 8.52 crore recipients in fiscal year 2009-10 and at Tk 7 for 9.08 crore recipients in fiscal year 2012-13.

The expenditure of middle-income nations for social safety nets falls between 6 percent and 8 percent of their gross domestic product. On the other hand, the allocation is equivalent to 2.19 percent of GDP in Bangladesh. The policy-makers want to keep the rate unchanged until 2020, which is the most worrying part. The expenditure is inadequate from the macro point of view. The allocation must be increased to make it meaningful.

 

Faizul Islam

Deputy Chief, Planning Commission

I want to emphasise on informal sector. In this sector there is no contract mechanism between employee and employers. We need to think how we can include these people in the social protection programmes.

 

Tofail Ahmed

Director, MJF and Co-convener of NFSP

There is a difference between poverty reduction and providing social protection. We should not confuse one with the other. Social protection works in life-cycle approach that provides a person life-long support.

Taxpayers currently do not see any benefit from paying taxes because they take various services such as healthcare from the private sector. The government should link tax payment with a universal pension scheme to encourage people in paying tax. It can transfer a portion of the tax to the pension scheme for taxpayers.

Local government bodies need to be involved more in the social protection programmes. In Kerala, village Panchayats carry out these programmes. It ensures proper delivery and monitoring of social protection funds.

There is an information centre in each Union Parishad. They can collect and update social protection programmes related information on a regular basis. It will help create an authentic national database.

 

Towfiqul Islam Khan

Research Fellow, Centre for Policy Dialogue

There is no doubt that the allocation for social safety nets is scanty. Some 27 percent of the allocation under social safety net schemes goes for pension for government employees, meaning the true allocation for the poor is actually less. The government employees’ pension scheme should not be counted as part of the social safety net.

There are discrepancies between the goals laid out in the planning ministry’s national social protection strategy or NSPS and the finance ministry’s medium-term budgetary targets. For example, the NSPS aims to bring 55 lakh senior citizens under the elderly allowance scheme by 2018, whereas the finance ministry puts the number at 30 lakh in its medium-term budgetary targets. A similar difference is also seen in budgetary allocation and allowance. This indicates a lack of coordination between finance and planning ministries.

I appreciate the government’s efforts to prepare a poverty database. If we get the list of beneficiaries of all the social protection programmes and make the information public it will help curb leakage.

 

Md. Shafiqul Islam

Country Director, ADD International Bangladesh

In Bangladesh we have no reliable database of poor people. That’s why efficient targeting is quite difficult here. I would request the planning ministry to take an initiative in this regards.

In many cases people with disability cannot go the government offices due to mobility problem. Here the government should reach them. Again, political consideration determines selection and allowance under the social safety nets. People with disability often become victim of such malpractices.

 

Benedict Alo D’ Rozario

Executive Director, Caritas Bangladesh

Our social protection programmes should follow rights-based approach. The beneficiary selection process should be made participatory at the grassroots level. In Caritas, we practice a participatory selection system where the people identify the recipients and finalise the list.

Our accountability system should be extended upto the grassroots level. That’s why there should be some allocation for independent monitoring in the budget. After completion of a project we can assess the outcome in a participatory mechanism. Finally, we should allocate funds for the poor people in hilly areas under the safety net scheme.

 

Naved Chowdhury

Poverty and Social Protection Adviser, DFID Bangladesh

Our country is on the way to becoming a middle-income country. We should also aspire for a change in budgetary allocation and for increased allocation for social safety nets. The total allocation for social protection should be raised gradually from 2.2 percent of GDP to 4 percent and later to 6 percent.

I would request our Planning Minister to play a coordinating role in bringing the 145 social protection programmes into the seven clusters defined by NSS. It will certainly bring a positive change in executing these programmes. We also need an effective coordination between finance ministry and planning ministry.

 

Shashwatee Biplob

Senior Program Manager (Development Cooperation), Australian High Commission

We already have plan and strategy paper for social protection sector. Now we need to prepare an action plan.

Along with providing social security we need to impart skills to the impoverished people. Otherwise they will not be able to come out of the poverty trap.

 

Palash Kanti Das

Assistant Country Director, Head, Poverty Reduction Cluster, UNDP Bangladesh

In assessing impact of social protection programmes we need to emphasise on two important factors: addressing emerging risks caused by natural disasters and urban poverty reduction. We often miss these two issues that have considerable impact on our poverty situation.

There should be a synergy between the reforms initiatives of administration and programmes of the social protection sector.  We need to develop a national methodology for targeting.

 

Goran Jonsson

Senior Programme Adviser, UNDP Bangladesh

In Bangladesh there is still a poverty gap because of wrong targeting. Many people who do not need support are getting fund while a significant number of vulnerable people are left out of the protection programmes. This discrepancy exacerbates the poverty gap. Another related issue is finding out who needs what amount of support. We need to maintain that the lowest quintile of poor people get the highest amount of support.

It is very important that you have to have enough allocation. Allocation in social protection is an investment. It should not be seen as a cost. Through social protection programmes we bring poor people into the mainstream so that they can contribute to our GDP.

 

S M A Rashid

ED, NGO Forum for Public Health and member of NFSP

We need to distribute our social protection programmes according to our regional variation of impoverishment. We should not left behind the poverty pockets.

 

Arefin Akhter

Senior Programme Officer, WFP

Timely disbursement of fund is very important. We have to ensure that the poor get the help when they need it most.

Another important issue is proper use of the fund. Sometimes we see that the fund provided for lactating mothers or pregnant women is being used for other family purposes. That’s why we need a consultation and awareness building mechanism in our programmes.

In our social protection programmes the nutrition issue does not get much importance. I would request the planners to emphasise more on nutrition-related intervention.

 

AHM Mustafa Kamal

Minister, Ministry of Planning

I do not agree that there is widespread wrong targeting of beneficiaries under the safety net schemes. We have improved our monitoring system a lot. People are also more conscious today. They protest against any kind of discrepancy.

It would not be possible to register development in a real sense if anyone remains excluded. Economic progress here means progress of all. We will bring them in such a position that they do not look behind.

Our tax to GDP ratio is very low. We can do more for the poor if we can raise the revenue collection. We also need more concerted efforts from all stakeholders to stop leakage and improve coordination.

The government has taken 20 projects to reduce poverty and increase the capacity of the poor. The planning ministry wants to take social protection projects in Haor and Char areas. I would request you to come up with effective project proposals to reduce poverty in these pockets. I do not think fund is a major constraint. We need better ideas. The government will allocate fund for implementing these ideas.


 

Published in প্রথম আলো on Wednesday, 27 April 2016

সামাজিক নিরাপত্তা-কৌশল ও আসন্ন বাজেট ২০১৬

১০ এপ্রিল ২০১৬, প্রথম আলো ও জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা ফোরামের আয়োজনে ‘সামাজিক নিরাপত্তা-কৌশল ও আসন্ন বাজেট ২০১৬’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত আলোচকদের বক্তব্য সংক্ষিপ্ত আকারে এই ক্রোড়পত্রে প্রকাশিত হলো।

 

সামাজিক সুরক্ষার জন্য বরাদ্দ প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। কাউকে পেছনে রেখে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়া সম্ভব নয়। দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য এ খাতে বরাদ্দ বাড়া​েনা ও অব্যবস্থাপনা দূর করা প্রয়োজন​

*সামাজিক নিরাপত্তাসেবার নির্বাচনপ্রক্রিয়ায় ৩৩.৫% উপকারভোগী সঠিকভাবে নির্বাচিত হন না

*২০১৫-১৬ অর্থবছরে জিডিপির ২.১৯% এবং উন্নয়ন বাজেটের ৩.৮% সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ ছিল

*দেশে জনসংখ্যার ৭.৭% বয়স্ক মানুষ

*২০১৪-১৫ অর্থবছরে জিডিপির ২.০২% বা বাজেটের ১৩% সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ব্যয় হয়েছে

*দেশে ৮৩% কর্মসংস্থান হয় অনানুষ্ঠানিক খাতে

 

সূত্র: এনএসএসএস, উন্নয়ন বাজেট ২০১৫-২০১৬, জনগণনা ২০১১, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন

আলোচনায় সুপারিশ

*সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর বরাদ্দের বিভিন্ন স্তরে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি আনা প্রয়োজন

* সামাজিক নিরাপত্তা–​বেষ্টনীর বরাদ্দের পরিমাণ বর্তমানের তুলনায় অনেক বাড়াতে হবে

*পেনশনকে সর্বজনীন করার বিষয়টি ভাবতে হবে; বিশেষ করে যাঁরা কর দেন, তাঁদের পেনশনের বিষয়টি আরও গুরুত্বের সঙ্গে ভাবা প্রয়োজন

*কেবল সামাজিক নিরাপত্তা দিলে হবে না। মানুষের দক্ষতা বাড়াতে হবে। মানবসম্পদ তৈরি করতে হবে

*যেকোনো সিদ্ধান্তের জন্য সঠিক তথ্যের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে

আলোচনা

আব্দুল কাইয়ুম: দেশের দারিদ্র্য নিরসনে সরকার ও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। আবার ঘূর্ণিঝড়, বন্যা, সাইক্লোন—এসবের জন্যও মানুষ দরিদ্র হচ্ছে। দারিদ্র্য নিরসনে সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি রয়েছে। কিন্তু এসব কর্মসূচি বাস্তবায়নে বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা থাকে। ফলে অধিকাংশ সময় দারিদ্র্য নিরসন কর্মসূচির মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া যায় না।

সমাজে এমন কিছু মানুষ আছে, যাদের দূরে গিয়ে সহায়তা আনা সম্ভব হয় না। তাদের কাছে কীভাবে সহায়তা পৌঁছানো যায়, সেটা ভাবতে হবে। আলোচনায় এসব বিষয় আসবে। এখন আলোচনা করবেন শাহীন আনাম।

 

শাহীন আনাম: অতিদারিদ্র্য নিরসনের জন্য সরকারের অঙ্গীকার আছে। সরকার সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ রেখেছে। এই অর্থের পরিমাণ হলো জিডিপির ২ দশমিক ১৯ শতাংশ। এখন সরকার ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান—আমাদের সবার দায়িত্ব এই কাজ ফলপ্রসূ করে তোলা। এর সুফল যেন দরিদ্র মানুষ পায়। আর এ জন্য সরকারের সঙ্গে ডিএফআইডি, ইউএনডিপি, অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনসহ কয়েকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের স্ট্রেনদেনিং পাবলিক ফাইন্যান্স ম্যানেজমেন্ট ফর সোশ্যাল প্রটেকশন নামের একটি মেমোরেন্ডাম অব আন্ডারস্ট্যান্ডিং সাইন হয়েছে।

এ জন্য আমরা একটি সামাজিক সুরক্ষা ফোরাম তৈরি করেছি। এই ফোরামের উদ্দেশ্য হলো সত্যিকার অর্থে কারা দরিদ্র, কাদের সহায়তা প্রয়োজন, অর্থাৎ সমাজের ঠিক মানুষটির কাছে সহায়তা পৌঁছানোর জন্য সরকারকে সহযোগিতা করা। সমাজের বিশিষ্ট নাগরিকেরা এ ফোরামে আছেন।

সুরক্ষা ফোরামের দুটি ভাগ রয়েছে। এক অংশে আছেন এমন মানুষ, যাঁদের সারা জীবন সাহায্যের প্রয়োজন। যেমন বিধবা নারী, বৃদ্ধ মানুষ‍—এঁরা। আরেক অংশে আছেন সামাজিক নিরাপত্তা উন্নয়নের জন্য কাজ করেন এমন ব্যক্তি। যাঁদের অন্যতম কাজ হলো জনগণের মতামত সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে প্রয়োজনীয় পরিবর্তনের জন্য উপস্থাপন করা।

সামাজিক সুরক্ষা তহবিলের বণ্টনপদ্ধতি কীভাবে আরও ফলপ্রসূ করা যায়, সে ক্ষেত্রে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন কাজ করছে। ভবিষ্যতে সামাজিক সুরক্ষাব্যবস্থা আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে বলে আশা করি।

এম এম আকাশ: দেশে দারিদ্র্যরেখা আয়ের নিচে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা কমপক্ষে চার কোটি। আবার দারিদ্রে্যর পর্যায়ে না থাকলেও যেকো​েনা সময়ে দরিদ্র হতে পারে এমন জনসংখ্যা ধরলে দারিদ্র্যের সংখ্যা হবে ৮ থেকে ১১ কোটি।

আমাদের সংবিধানের ১৫-এর উপধারায় নাগরিকদের অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থান, বিনোদন এবং নিরাপত্তার অধিকার পূরণকে রাষ্ট্রের নৈতিক দায়িত্ব হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। তাই আমাদের এই কৌশলপত্রের লক্ষ্যই হচ্ছে দরিদ্র ও নাজুক দরিদ্রদের জন্য একটি উপযুক্ত সামাজিক নিরাপত্তাবলয় তৈরি করা।

আজকের আলোচনায় কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করা প্রয়োজন। যেমন সরকার বয়স্ক, বিধবা, দুস্থ ইত্যাদি শ্রেণির মানুষের জন্য মাসিক ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা বা ​দৈনিক ১০ থেকে ১৩ টাকা বরাদ্দ করেছে। এটা দিয়ে কতটুকু সমস্যার সমাধান হবে? তাই ভাতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই।

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিগুলো সাধারণত গ্রামাঞ্চলেই পরিচালিত হয়। অথচ শহরে উচ্চ বাড়িভাড়া, গ্যাস, বিদ্যুৎ​, পানি ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি খেটে খাওয়া মানুষের জীবন অসহায় করে তু​লছে। কিন্তু সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি শহরে তেমন মনোযোগ পাচ্ছে না।

বর্তমানে প্রায় ১৪৫টি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ২৩টি মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত হয়। কিন্তু এদের মধ্যে যথেষ্ট পরিমাণে একে অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়া, টানাটানি, সমন্বয়হীনতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির অভাব রয়েছে।

বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম, অদক্ষতা, ঘুষ-দুর্নীতিসহ অব্যবস্থাপনার জন্য প্রকৃত গ্রাহকেরা এর সুফল পাচ্ছেন না। সামাজিক সুরক্ষার জন্য নির্ধারিত ব্যয়ের ২৫ থেকে ৫০ শতাংশ অর্থ প্রাপকের কাছে পৌঁছায় না।

অনেক ক্ষেত্রে প্রকৃত দরিদ্ররা এই কর্মসূচির মধ্যে ঢুকতে পারছে না। আবার সচ্ছল মানুষ অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে। তাই একজন সচ্ছল মানুষকে বের করে দিলে সেখানে একজন দরিদ্র মানুষ প্রবেশ করতে পারে।

বিশ্বের মধ্য আয়ের দেশগুলোর সামাজিক খাতের ব্যয় তাদের জিডিপির ৬ থেকে ৮ শতাংশ। সেখানে আমাদের মাত্র ২ শতাংশ। সামাজিক সুরক্ষায় সুফল পেতে হলে বাজেটে সামাজিক সুরক্ষা খাতে ব্যয় বাড়​াতে হবে। সংশ্লিষ্ট সবাই এ বিষয়গুলো গুরুত্বের স​েঙ্গ বিবেচনায় নেবেন এবং এ ক্ষেত্রে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে আশা করি।

তৌফিকুল ইসলাম খান: অন্য দেশের তুলনায় আমাদের সামাজিক সুরক্ষার বরাদ্দ অনেক কম। এটা আমাদের জিডিপির মাত্র ২ দশমিক ২ শতাংশ। সঠিক ব্যবস্থাপনার অভাবে এই বরাদ্দের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে না। সামাজিক সুরক্ষার ২৭ শতাংশ সরকারি পেনশন। পেনশন সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য, যা সরকার দেবে। একে আমরা নিরাপত্তা সুরক্ষার মধ্যে আনব কি না, সেটি একটি বড় প্রশ্ন।

সামাজিক নিরাপত্তা–বেষ্টনী বললে আমাদের সামনে দরিদ্র মানুষের ছবি ভেসে ওঠে। সরকারি পেনশনের অংশ বাদ দিলে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে সরকারের বরাদ্দ হবে জিডিপির ১ দশমিক ৬ শতাংশ। দেশে ২৫ শতাংশ মানুষ বিত্তশালী। বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখি, এদের ২৭ শতাংশ কোনো–না-কোনোভাবে সেফটি নেটের সুবিধা গ্রহণ করছে।

আবার দীর্ঘদিন ধরে কোনো ভাতা বাড়ছে না। ২০০২ বা ২০০৩ সালে যে ভাতা দেওয়া হতো, তার প্রকৃত মূল্য এখন কত? দীর্ঘ সময় ধরে স্কুলের শিক্ষার্থীদের ভাতা সেই ১২৫ টাকাই আছে। এসব ভাতা এখন আর গ্রাহকদের সুবিধা দিতে পারছে না। অথচ বড় সম্পদ ব্যবহৃত হচ্ছে। আজকের কৌশলপত্রে এসব বিষয় এসেছে।

কৌশলপত্রে সেফটি নেটকে কার্যকর করার নির্দেশনাও আছে। সেফটি নেটের পরিকল্পনার সঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সমন্বয় আছে কি না, সেটিও ভেবে দেখার বিষয়। কৌশলপত্রে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বৃদ্ধ ভাতা দুই হাজার কোটি টাকা করার কথা আছে। কিন্তু বরাদ্দ হয়েছে ১ হাজার ৪৪০ কোটি টাকা। ২০১৮ সালেও এটা একই অর্থ থাকবে। এনএসএসপির হিসাব অনুযায়ী এটা ৩ হাজার ৭৪০ কোটি টাকা করতে হবে।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের ভাতা এবার বরাদ্দ আছে ১ হাজার ১৫৯ কোটি টাকা। এনএসএসপি বলছে, এ খাতে প্রয়োজন ৩ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা। তাই সামাজিক সুরক্ষাকে ফলপ্রসূ করতে হলে এসব বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করতে হবে।

বেনেডিক্ট আলো ডি রোজারিও: সবার জন্য ভালো খবর যে সরকার সামাজিক সুরক্ষার যে কাজটি করছে তা কল্যাণভিত্তিক পর্যায়ে রয়েছে। এটাকে অধিকারভিত্তিক করা প্রয়োজন। আবার বরাদ্দ যা আছে, সেটাকে কার্যকর করতে হবে। কারণ বরাদ্দের বিভিন্ন স্তরে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি আনা প্রয়োজন।

গ্রাম থেকে এই কাজ শুরু করতে হবে। কারিতাস ঠিক এই জায়গায় কাজ করছে। বিভিন্ন উপজেলায় আমাদের অসংখ্য গ্রুপ কাজ করছে। আমরা সদস্য নির্বাচন–পদ্ধতিতে অংশগ্রহণমূলক তালিকা করছি। সবাই দেখতে পারে এমন একটি জায়গায় তালিকা টাঙিয়ে রাখা হচ্ছে। আমাদের এ কার্যক্রমে সরকার, জনগণের প্রতিনিধি, স্কুলের শিক্ষক, এনজিও প্রতিনিধি—সবাই মিলে নির্বাচিত সদস্যদের যাচাই-বাছাই করা হয়; যাতে সঠিক ব্যক্তি সামাজিক সুরক্ষার আওতায় আসতে পারে।

আমাদের এ কাজের মাধ্যমে সুফল পাওয়া যাচ্ছে। এভাবে প্রায় অধিকাংশ ক্ষেত্রে সঠিক ব্যক্তি সামাজিক সুরক্ষার আওতায় আসছে। আমি মনে করি, বাজেটে তদারকের জন্য একটা বরাদ্দ থাকা প্রয়োজন। তাহলে সামাজিক সুরক্ষার বরাদ্দ অনেক বেশি কার্যকর হবে।

ফায়জুল ইসলাম: আলোচনায় সামাজিক সুরক্ষার বিষয় এসেছে। প্রচলিত খাত (ফরমাল সেক্টর) নিয়ে খুব বেশি কথা নেই। অপ্রচলিত খাত (ইনফরমাল সেক্টর) কীভাবে নিরাপত্তাজাল বা বেষ্টনীর মধ্যে আনা যায়, সেটি গুরুত্বসহকারে ভাবতে হবে। কারণ, অপ্রচলিত খাত আমাদের জন্য একটা সমস্যা তৈরি করবে। আমাদের একটি শ্রম আইন আছে। এই আইনে এখন পর্যন্ত অপ্রচলিত খাতের কর্মচারী ও মালিকের মধ্যে কোনো চুক্তি নেই। বিষয়টি নিয়ে সবাই ভাববেন বলে আশা করি।

মো. শফিকুল ইসলাম: আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো নির্ভরযোগ্য তথ্যের। আমাদের এমন কোনো তথ্য নেই, যা খুব বিশ্বাসযোগ্য। বয়স্ক মানুষ, উপকূল, হাওর, পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষ, আরও বিভিন্ন দরিদ্র ও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষ, যাদের নিরাপত্তাজালের মধ্যে আনা খুবই প্রয়োজন। কিন্তু এসব মানুষের নির্ভরযোগ্য কোনো তথ্য নেই; যার ওপর ভিত্তি করে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে।

এখন আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো তথ্য নিয়ে কাজ করা। পরিকল্পনা কমিশন ও বিবিএস (বাংলাদেশ ব্যুরো অব স্ট্যাটিসটিকস) তথ্যের বিষয়টি গুরুত্বসহকারে নেবে বলে আশা করি।

শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিদেরও একই অবস্থা। তাদেরও সঠিক পরিসংখ্যান নেই। এদের অনেকে নিরাপত্তাবেষ্টনীর বাইরে থেকে যাচ্ছে। সামাজিক নিরাপত্তা ভাতা প্রাপ্তি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে হয়। সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কার্যকর করার জন্য এ বিষয়টিও বিবেচনায় নিতে হবে।

২৩টি মন্ত্রণালয় ১৪৫টি কর্মসূচি পরিচালনা করে। আদৌ এতগুলো কর্মসূচির প্রয়োজন আছে কি না, তা ভাবা প্রয়োজন। ১৪৫টি কর্মসূচির উদ্দেশ্য কি দারিদ্র্য নিরসন, না অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে—এটিও দেখা দরকার বলে মনে করি। শারীরিক অক্ষম ব্যক্তিরা দূরত্বের জন্য অনেক সময় ভাতা নিতে পারেন না। সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কার্যকর করতে হলে এমন অনেক বিষয় বিবেচনা করতে হবে।

আরেফিন আক্তার: আমাদের মাঠপর্যায়ে কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, কাজ করার টাকা পেতে দুই-তিন মাস সময় লাগে। এত দিন পরে অর্থ পেলে তার প্রয়োজনটা সে সময়ে সেভাবে না-ও থাকতে পারে। আবার বর্তমানে না পাওয়ায় অনেক সমস্যা তৈরি হয়।

এ ক্ষে​েত্র কেনাকাটাগুলো বাকিতে করতে হয়। ক্রেতার পণ্য নির্বাচনের সুযোগ থাকে না। বিক্রেতা যা দেয়, সেটাই তাকে নিতে হয়। টাকা কিন্তু দেওয়া হচ্ছে। শুধু সময়মতো না দেওয়ার কারণে অর্থের কার্যকর ব্যবহার হচ্ছে না। এ বিষয়টা ভাবা প্রয়োজন।

একজন গর্ভবতী মা বা একজন বয়স্ক মানুষকে যে জন্য টাকা দেওয়া হয়, সেই কাজে টাকাটা ব্যয় না করে তাঁরা অন্য কাজে ব্যয় করেন। ফলে অর্থ দেওয়ার সময় কী জন্য অর্থ দেওয়া হয়েছে, সে বিষয়ে সচেতন করা প্রয়োজন। তাহলে তিনি সেই নির্দিষ্ট কাজে অর্থ ব্যয় করবেন।

১৪৫টি নিরাপত্তা কর্মসূচি আছে। অথচ নিউট্রিশন একটি গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি। এ কর্মসূচিটা নেই। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য নিউট্রিশন কর্মসূচির কোনো বিকল্প নেই। ফলপ্রসূ নিরাপত্তা কর্মসূচির জন্য এসব কাজ খুব গুরুত্বপূর্ণ।

পলাশ কান্তি দাস: মধ্য আয়ের দেশের কথা শুনলে মনে হয় আমরা বড়লোক হয়ে যাচ্ছি। কিন্তু বাস্তবতা অনেক ক্ষেত্রে সেটা নয়। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের দারিদ্র্য ও সামাজিক নিরাপত্তা এক রকম নয়। অঞ্চলভেদে এর ভিন্নতা রয়েছে। বাজেট প্রণয়নের সময় এ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় আনা প্রয়োজন।

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি) সামাজিক নিরাপত্তার কথা বলা হয়েছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায়ও সামাজিক নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এ পরিকল্পনা এসডিজির সঙ্গে সম্পৃক্ত। দ্রুত নগরায়ণের ফলে বিশেষ একধরনের দারিদ্র্য সৃষ্টি হচ্ছে। এর জন্যও ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। যেকোনো বাজেট স্থানীয় পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার এ বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দিতে হবে।

গ্রামীণ শ্রমিকদের জন্য কোনো পেনশন স্কিম নেই। অনুরোধ থাকবে, পরিকল্পনা কমিশন যেন এ বিষয়টি ভাবে। ১৪৫টি কর্মসূচিকে পাঁচটি ক্লাস্টারে আনা হয়েছে। কিন্তু এখানে কর্মসূচি ও প্রশাসনের মধ্যে সমন্বয় নেই।

যেকোনো সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে প্রয়োজন তথ্যের। আমাদের প্রকৃত তথ্যের খুব অভাব। বিবিএসের তথ্যের কোথাও–না–কোথাও একটি সমস্যা থেকে যায়।

গোরান জনসনগোরান জনসন: বাংলাদেশ সামাজিক নিরাপত্তা জোরদার করার চেষ্টা করছে। কিন্তু দরিদ্রদের জন্য যে বরাদ্দ থাকে, সেটা মোটেই পর্যাপ্ত নয়। আবার কিছু মানুষ দারিদ্র্যের কাছাকাছি থাকে। বিভিন্ন প্রাকৃতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক ইত্যাদি কারণে তারা দরিদ্রদের মধ্যে চলে আসার ঝুঁকি থাকে।

অন্যান্য দেশে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর জন্য যত ফলপ্রসূভাবে কাজ হয়, বাংলাদেশে ঠিক সেভাবে হয় না। আবার সামাজিক নিরাপত্তার জন্য সেই সব দেশের বরাদ্দ বাংলাদেশের তুলনায় বহু গুণ বেশি। সেখানে মানুষ দারিদ্র্য থেকে মুক্তি পায়।

এখানে অনেক ক্ষেত্রে দরিদ্র মানুষ সহায়তা থেকে বাদ পড়ে যায়। আবার অনেক ক্ষেত্রে যার সহায়তার প্রয়োজন নেই, তিনিই সহায়তা পান। এ দেশের অনেক মানুষ আছে, যারা দারিদ্র্যরেখার অনেক নিচে। তাদের জন্য বিশেষ ভাতা চালু করা প্রয়োজন। যাচাই-বাছাই করে দেখতে হবে কোথায় পাঁচ হাজার আর কোথায় পাঁচ শ টাকা প্রয়োজন।

এখানে সামাজিক সুরক্ষা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অনেক সময় সামাজিক, রাজনৈতিক ও প্রায়োগিক সমস্যা থাকে। সামাজিক সুরক্ষার উদ্দেশ্য দারিদ্র্য দূর করা নয়। এর প্রধান উদ্দেশ্য সামাজিক সুরক্ষা বা নিরাপত্তা দেওয়া। যদি সঠিকভাবে নিরাপত্তা ও সুরক্ষা দেওয়া যায়, তাহলে মানুষ দরিদ্র হবে না।

বাজেটে পর্যাপ্ত বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন। কেবল বাজেট বাড়ালেই হবে না—এর কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করা প্রয়োজন।

নাভেদ চৌধুরী: বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হচ্ছে। চারদিকে এই পরিবর্তনের ছোঁয়া দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে গড় ব্যয় জিডিপির ৬ থেকে ৮ শতাংশ। আমাদের এ খাতে ব্যয় মাত্র ২ দশমিক ২ শতাংশ। মাননীয় মন্ত্রীকে অনুরোধ করব, এ ক্ষেত্রে কেন আমরা কিছুটা স্বপ্ন দেখতে পারি না? আমাদের উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রায় সব বিষয়ে পরিবর্তন আসছে। দেশে করের ক্ষেত্রে সংস্কার আসছে। অভ্যন্তরীণ সম্পদের পরিমাণ বাড়ছে, আমাদের স্বপ্ন, চিন্তাধারা বাড়ছে। বিবিএসে তথ্য নিয়ে অনেক আধুনিক চিন্তাভাবনা আসছে। তাহলে কেন সামাজিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসবে না?

সরকার চালাতে গেলে অনেক কিছু বিবেচনায় নিতে হয়। মাননীয় মন্ত্রীকে আরও অনুরোধ করব, ১৪৫টি কর্মসূচিকে সাতটি ক্লাস্টারে ভাগ করার ক্ষেত্রে উনি যেন একটা ভূমিকা রাখেন। আমাদের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কৌশলপত্র তৈরি হয়েছে। এটা বাংলাদেশের জন্য যুগান্তকারী পরিবর্তনের প্রথম সোপান।

শাশ্বতী বিপ্লব: সামাজিক নিরাপত্তার জন্য কৌশলপত্র তৈরি হয়েছে। সব ক্ষেত্রে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমার কাছে যেটা মনে হয়, মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয় নিয়ে কাজ করাটা এখনো বাকি আছে। এ জায়গাটায় গুরুত্ব দিয়ে কাজ করা প্রয়োজন।

গত সপ্তাহে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে একটি আলোচনায় অংশ নিয়েছিলাম। তখন মনে হয়েছে মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। আরেকটা বিষয় হলো যে আমাদের কৌশলপত্র আছে, পরিকল্পনা আছে; কিন্তু আমাদের কর্মপরিকল্পনার অভাব রয়েছে। এ ক্ষেত্রে সবার মতামতের ভিত্তিতে একটা ভালো কর্মপরিকল্পনা করা দরকার।

সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। সবার মধ্যে কাজ করার ইতিবাচক মানসিকতা আছে। সরকারের সদিচ্ছার বিষয়টি খুব ভালোভাবে বোঝা যায়। এটিই বাংলাদেশের বড় শক্তি বলে মনে হয়। কেবল সামাজিক নিরাপত্তা দিলে হবে না। মানুষের দক্ষতা বাড়াতে হবে। মানবসম্পদ তৈরি করতে হবে। এ জন্য অনেক সম্পূরক কর্মসূচি নেওয়া প্রয়োজন।

এস এম এ রশীদ: সারা দেশের দারিদ্র্য একই রকম নয়। উপকূলীয় অঞ্চল, হাওর অঞ্চল, দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল—প্রতিটি জায়গায় দারিদ্র্য ও বিপন্নতা ভিন্ন রকমের। আবার শহরের বস্তি এলাকায় যারা থাকে, তাদের দারিদ্র্য আরেক রকমের।

এই দারিদ্র্যের ভিন্নতার ভিত্তিতে প্রকল্পগুলোকে ঢেলে সাজাতে হবে। এসব দরিদ্র মানুষের জন্য এখনো যেসব ক্ষেত্রে কাজ করা প্রয়োজন তা করা হয়নি, সেসব জায়গায় কাজ করা দরকার। দারিদ্র্যের ভিন্নতাকে বিবেচনায় না নিয়ে আমরা যদি প্রকল্প নির্বাচন করি, তাহলে সেগুলো তেমন ফলপ্রসূ হবে না। তাই কোনো প্রকল্প নির্বাচনের সময় এসব বিষয় গুরুত্বের সঙ্গে ভাবা প্রয়োজন। তাই সব ​এলাকার বরাদ্দও একই রকম হলে হবে না। প্রয়োজনের ভিত্তিতে কোনো এলাকায় কম আবার কোনো এলাকায় বেশি বরাদ্দ দিতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা কাজের মধ্যে এভাবে সমন্বয় না আনলে নিরাপত্তার কাজটি ফলপ্রসূ হবে না।

তোফায়েল আহমেদ: সামাজিক নিরাপত্তা–কৌশল ও দারিদ্র্য এক বিষয় নয়। কিন্তু অনেকের আলোচনা থেকে মনে হয়েছে দুটো একই বিষয়। দুটো বিষয়কে আলাদা করে ভাবতে হবে।

সামাজিক নিরাপত্তা–কৌশল হচ্ছে একটা জাতির ভারসাম্য। এক​টি শিশুর জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত কী ধরনের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা দেওয়া প্রয়োজন, কৌশলপত্রে তার নির্দেশনা থাকে। এটি একটি সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা।

দারিদ্র্য বিমোচন আলাদা ধরনের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। কিন্তু সামাজিক নিরাপত্তা–কৌশলের সঙ্গে দারিদ্র্য নিরসনকে মিলিয়ে ফেললে হবে না। ২৩টি মন্ত্রণালয় কেন সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর কাজ করবে? মন্ত্রণালয়গুলোর একটা প্রবণতা হলো তাদের সবাইকে মাঠপর্যায়ে প্রকল্প নিয়ে কাজ করতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা–কৌশল বাস্তবায়নের প্রধান দায়িত্বে থাকবে পরিকল্পনা কমিশন, অর্থ মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এদের নেতৃত্বে সব কাজ পরিচালিত হবে। বাস্তবায়নের জন্য সমাজকল্যাণ, দুর্যোগ, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়সহ পাঁচ থেকে ছয়টি মন্ত্রণালয়ই যথেষ্ট।

১৪৫টি কর্মসূচির মধ্যে এমন অনেক কর্মসূচি আছে, যেখানে সেফটি নেটই খুঁজে পাওয়া যায় না। আর এগুলো পরিচালনার জন্য ২৩টি মন্ত্রণালয়ের দরকার নেই। এগুলোর মাধ্যমে বেশি অপচয় হচ্ছে। পেনশনকে সর্বজনীন করার বিষয়টি ভাবতে হবে; বিশেষ করে যাঁরা কর দেন, তাঁদের সবার জন্য পেনশনের বিষয়টি আরও গুরুত্বের সঙ্গে ভাবতে হবে।

রাশেদা কে চৌধূরী: সরকারের জনকল্যাণকর প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে আমরা সহযোগিতা করতে চাই। সবকিছু দেখাশোনার জন্য একটা শক্ত তদারকের ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন। দেশে ৮৪ হাজার প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে। এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। তাহলে শিক্ষার মান বাড়বে। এটাকে খরচ হিসেবে না দেখে বিনিয়োগ হিসেবে দেখতে হবে। আয়ের ভিত্তিতে দারিদ্র্যের পরিমাপ করা ঠিক হবে না। যেমন সিলেটের মাথাপিছু আয় অনেক বেশি। অথচ সব কটি সামাজিক সূচক নিচের দিকে। আমরা স্বীকার করি, সম্পদের অভাব আছে। এ ক্ষেত্রে আমাদের অনুৎপাদনশীল খাতের খরচ কমানো জরুরি। জিডিপির ২ শতাংশ দুর্নীতি খেয়ে ফেলে। এটাকে যদি অর্ধেকে নামিয়ে আনতে পারি, তাহলে অন্তত ১ শতাংশ সম্পদ কাজে লাগানো যায়। নারীর প্রতি সহিংসতার জন্য জিডিপির ২ শতাংশ ব্যয় হয়। সহিংসতা বন্ধ বা কমপক্ষে কমিয়ে আনতে পারলে অনেক সম্পদ বেঁচে যায়। প্রত্যক্ষ করের পরিমাণ বাড়াতে হবে। এসব অনেক বিকল্পের মাধ্যমে সম্পদের পরিমাণ বাড়ানো যায়।

শেষে বলব যে মানুষের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বিনিয়োগ না করলে অনেক ধরনের স্বপ্ন দেখতে পারি, কিন্তু বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না। স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে।

আ হ ম মুস্তফা কামাল: প্রাচীনকাল থেকেই বিভিন্নভাবে সামাজিক নিরাপত্তার কাজ চলে আসছে। এখন বিশ্বের ১২০টি দেশ কোনো–না–কোনোভাবে সামাজিক নিরাপত্তার কাজ করছে। আমাদের দেশেও সামাজিক নিরাপত্তার কাজ হচ্ছে।

আপনাদের প্রধান দাবি হলো, এ খাতে বরাদ্দ বাড়ানো। আমরা বাড়াতে চাই। অনেক ক্ষেত্রে ইচ্ছা থাকলেও সম্পদের অভাবে এটা করতে পারি না। আমরা ধীরে ধীরে সামনের দিকেই এগোচ্ছি। এভাবে এগিয়ে যাওয়াটাই ভালো উদ্যোগ।

ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা, রাশিয়া, চীন—এমন অনেক দেশ আছে, যাদের একসময় জিডিপির অনেক বেশি প্রবৃদ্ধি ছিল। এখন এদের কারও কারও ঋণাত্মক জিডিপি। আবার কারও একেবারে নিচে নেমে এসেছে। কিন্তু আমরা আমাদের মতো করে সামনের দিকে যাচ্ছি।

অনেক দ্রুত কিছু করতে গেলে সেটা অনেক ক্ষেত্রে কল্যাণকর না-ও হতে পারে। আপনারা অনেকেই অনিয়মের কথা বলেছেন। এখন কিন্তু অনিয়মের সুযোগ নেই। মানুষ আগের থেকে অনেক বেশি সচেতন হয়েছে। এক মাসে অনিয়ম করলে পরের মাসে ধরা পড়ে যায়।

তবে এটা সত্যি কথা, যে পরিমাণ দেওয়ার কথা, সেই পরিমাণ দিতে পারছি না। আমি পরিকল্পনা কমিশনে আসার পর অনেক সংস্কার করেছি। নগদ অর্থ দেওয়া কমিয়ে দিয়েছি। এখন প্রকল্পভিত্তিক বিনিয়োগ করছি। যেমন দরিদ্র নারী-পুরুষের জন্য কর্মসংস্থান, মৎস্য চাষ, বন্য ব্যবস্থাপনা, কারিগরি শিক্ষা, বিভিন্ন বিষয়ের ওপর প্রশিক্ষণ—এমন ২০টি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। প্রতিটি প্রকল্পের একটি প্রধান বিষয় থাকবে শিক্ষা। এসব প্রকল্পের মাধ্যমে মানুষের সক্ষমতা বাড়বে। তারা নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবে।

এমডিজি বা এসডিজিতে বলা থাক বা না–থাক, আমাদের মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। একজন মানুষকেও পেছনে রেখে আমরা সামনে এগোতে পারব না। আমাদের সবার কথা ভাবতে হবে। ২০৩০ সালের মধ্যে আমরা উচ্চ আয়ের দেশ হতে চাই।

আপনারা দরিদ্র মানুষের জীবনমানের উন্নয়নের জন্য প্রকল্প আনেন। আমরা সহায়তা করব। আপনাদের পরামর্শও কাজে লাগানোর চেষ্টা করব।

আব্দুল কাইয়ুম: অন্যান্য দেশের তুলনায় আমাদের সামাজিক নিরাপত্তার ব্যয় কম। বিষয়টি বিবেচনা করা প্রয়োজন। সেই সঙ্গে এ খাতে যে অপব্যয়-অনিয়ম হয়, সেটাও কমানো উচিত। আমাদের মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে হলে সামাজিক নিরাপত্তাকে জোরদার করতে হবে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নেবেন বলে আশা করি। প্রথম আলোর পক্ষ থেকে সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

যাঁরা অংশ নিলেন

আ হ ম মুস্তফা কামাল       : সাংসদ, মন্ত্রী, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়

রাশেদা কে চৌধূরী           : নির্বাহী পরিচালক, গণসাক্ষরতা অভিযান ও কনভেনর, এনএফএসপি

এম এম আকাশ              : অর্থনীতিবিদ ও অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

শাহীন আনাম                 : নির্বাহী পরিচালক, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও কো-কনভেনর, এনএফএসপি

তোফায়েল আহমেদ         : পরিচালক, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও কো-কনভেনর, এনএফএসপি

ফায়জুল ইসলাম            : উপপ্রধান, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ, পরিকল্পনা কমিশন

নাভেদ চৌধুরী              : উপদেষ্টা, দারিদ্র্য ও সামাজিক নিরাপত্তা, ডিএফআইডি, ব্রিটিশ হাইকমিশন

পলাশ কান্তি দাস            : অ্যাসিস্ট্যান্ট কান্ট্রি ডিরেক্টর, প্রধান, দারিদ্র্য দূরীকরণ, ইউএনডিপি

গোরান জনসন              : সিনিয়র প্রোগ্রাম অ্যাডভাইজর, এসএসপিএস প্রোগ্রাম, ইউএনডিপি, বাংলাদেশ

আরেফিন আক্তার           : ঊর্ধ্বতন কর্মসূচি কর্মকর্তা, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম

মো. শফিকুল ইসলাম       : কান্ট্রি ডিরেক্টর, এডিডি ইন্টারন্যাশনাল ও সদস্য, এনএফএসপি

বেনেডিক্ট আলো ডি রোজারিও  :   নির্বাহী পরিচালক, কারিতাস বাংলাদেশ ও সদস্য, এনএফএসপি

শ​াশ্বতী বিপ্লব              : সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার (ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন), অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশন

তৌফিকুল ইসলাম খান      : রিসার্চ ফেলো, সিপিডি

এস এম এ রশীদ           : নির্বাহী পরিচালক, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ ও সদস্য, এনএফএসপি

সঞ্চালক   

আব্দুল কাইয়ুম                : সহযোগী সম্পাদক, প্রথম আলো

 

 

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *