Published in The Independent on Tuesday, 8 March 2016

Women in sustainable development

M.A. Jabbar

International Women’s Day on March 08, again reminds us that women’s empowerment is the reflection of gender parity, which is the prerequisite for sustainable development. Women’s participation in the workplaces, leadership role in the political and social arena, and access to education, healthcare, and credit can be regarded as empowerment of women. The day provides all an opportunity to celebrate the achievements of women while calling for greater equality in all spheres of life. Several events will take place to mark the economic, political, and social achievements of women and several organizations, government, charities, educational institutions, women’s group, corporations including the media will celebrate the day in a befitting manner. Bangladesh like all other UN member-states will observe the day with renewed pledge to protect women’s rights and with assurance to make women’s participation in all spheres of national life. Ban Ki-Moon, UN Secretary-General in his message on the day emphasized on the importance of gender equality as there is no greater investment in our common future. UN Women Executive Director Phumzile Mlambo-Ngcuka called for observance of the day in a befitting manner  as for this year’s celebration of IWD is the first within the new 2030 agenda for Sustainable Development Goals and asserted for  ensuring Gender Equality and Empowerment of women and girls at all spheres in life for building stronger economies and healthier societies. As we know, the major obstacles faced by women and girls in their way to development in Bangladesh are marked as sexual harassment, child marriage and dowry etc. All these are preventable through united efforts of all and change of attitude towards women. They also face economic disparity.

As to note one study of Center for Policy Dialogue(CPD) and Manusher Jonno foundation (MJF) have quantified with estimation worth Tk. 5948 billion or USD 151.72 billion as unpaid household works of women in Bangladesh. It said that unpaid work of women is equivalent to 87.2 percent of GDP of Fiscal Year (FY) 2013-14. However, their contribution goes unrecognized. The study however shows that 60.4 percent women do not want to be involved in paid work as their families do not like and about 60 percent women cited preference to give time to family. The study suggested for inclusion of informal sector contribution in country’s Gross Domestic Product (GDP).

Government of Bangladesh is committed to attaining the objectives of the Convention on the Elimination of all forms of Discrimination against Women (CEDAW), the Beijing Platform for Action and Sustainable Development Goals to be achieved by 2030 in conformity with the fundamental rights enshrined in the Bangladesh constitution. It has adopted the National Policy for Women’s Advancement (2011) and series of programs for ensuring sustainable development of women. Regarding leadership role in politics there has been an encouraging trend in the number of women of elected parliamentarians (20% of total seats). About literacy, Bangladesh was the first country in South Asia to achieve gender parity in primary education, which is now compulsory and free for all children aged between 6 and 10. All children attending primary and secondary school receive textbooks free of cost. The education of girls up to grade II in public institutions is also free. Stipends are awarded to girl students to avert dropout. MDGs-Bangladesh progress report 2012 reveals that it has made commendable progress in respect of increasing equitable access in education (Net Enrolment Rate:98.7 percent; girls 99.4 percent, boys: 97.2 percent). The government is in the process of implementing a comprehensive National Education Policy, providing Bangladesh’s intention to ensure all citizens with a quality education with an emphasize removing gender based disparities. Maternity and health : In view of the needs of mothers, the government has extended maternity leave for mothers from four months to six months. Bangladesh has achieved tremendous success in cutting down maternal mortality rate by more than 66 percent during the last two decades and is dropping around 5.5 percent each year. Steps have been taken to reduce this to 63 per 100,000 live birth by 2030 and for extending delivery of primary health care services through community clinics to rural, marginal and vulnerable women. Combating violence against women: Relentless efforts of the government have been reflected though passing of Domestic Violence (Prevention and Protection) Act 2010 and in order to effectively implementing the law government has formulated Domestic Violence (prevention and protection) Rules 2013. Other laws included- Prevention and Restraintment of Human Trafficking Act 2012 and Pornography Control Act 2011. In addition to enactment of laws, one-stop crisis centers provides medical treatment, legal support, policy assistance and rehabilitation to the victims, DNA profiling lab and DNA screening lab have been established for the benefits and welfare of women. Economic support and social safety net: In order to expedite women’s fortunes extensive programme have been taken for their training, creating job opportunities and ensuring participating in the job market and providing support through SME. Extensive social safety net programme have been undertaken by providing various kinds of allowances namely destitute women allowances, maternity and lactating-mother allowances, disabled women allowances, divorced women allowances. Vulnerable Group Feeding (VGP) is carried out to ensure food security to vulnerable extreme poor women. For economic emancipation and empowerment of rural women collateral free micro-credit is given with nominal service charge. As a result, Bangladesh women have come out vigorously with hundreds of thousands of initiatives for changing fortune of their fortunes. They have brought a social transformation with their participation in the economic development in the country. Today women are in everywhere- in the administration, judiciary, education, health-care sector, engineering, banking and insurance, entrepreneurship and business and in fact every sector. The rapid growth of the garment industry has provided a large number of formal sector jobs for women who comprise more than 90 percent of its labor force. This has significantly contributed to Bangladesh’s annual growth rate of more than 5 percent over the past decade. They are contributing significantly in SME and readymade garments sectors. Their contribution to food, social security, education, and child-care are beyond calculation. A study shows that in rural area paddy and rice production from cultivating to marketing are processed in 23 phases and of them 17 phases are completed by rural women. A UNICEF study says that women spend two-third of their time on food production although their total income is equivalent to only 10 percent of global income. The constitution of Bangladesh emphasize on the rights of women. Beside there are some special laws and provisions which protect and promote the right of women. Bangladesh government has formulated women development policies and different line Ministries of the government has taken several steps in order to promote gender equality and to integrate them with the development. Nevertheless, we have to do more for socio-economic development. Bangladesh is a developing country committed to achieve various socio-economic targets for the welfare of the people. Keeping half of the total population-women, a strong nation equipped with socio-economic development cannot be expected. As such, government has given priority to accelerate the rights and dignity of women in the society. With government efforts- NGOs, public representatives, civil societies, individuals and family and in fact all from respective places can work together to achieve the goals for sustainable development.

(Jabbar is a banker and executive secretary of national anti-tobacco organization, ADHUNIK.)



Published in প্রথম আলো on Tuesday, 8 March 2016

ঘরের কাজের মূল্য কী?

তৌহিদা শিরোপা

International-Women's-Dayতিন বন্ধুর আড্ডা। বউদের প্রসঙ্গ এল। দুই বন্ধুর বউ কর্মজীবী। তৃতীয় বন্ধু বেশ তাচ্ছিল্যের সঙ্গেই বলেন, ‘আমার বউ কিছু করে না। ঘরেই থাকে।’ মা, বউ যে গৃহিণী এটা বলতে কারও কারও যেন বাধে। ঘরে দিনরাত কাজ করেন, তার স্বীকৃতি, মূল্যায়ন বা মর্যাদা তো মেলেই না। বরং কাউকে কাউকে শুনতে হয় খোঁটাও। সংসার আর সন্তানের সুখ-শান্তির কথা ভেবে অনেক কর্মজীবী নারী চাকরি ছেড়ে ঘরের কাজ করেন। তাঁর এই ত্যাগের কথা কেউ মনে রাখে না। মেলে না কোনো মূল্য।

জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার মধ্যেও এ বছর গৃহস্থালির কাজকে স্বীকৃতি দেওয়ার একটা সূচক আছে। সম্প্রতি নানাভাবে বারবার আলোচনায় এসেছে এ বিষয়টি। এই ঘরের কাজের স্বীকৃতি থাকলে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথে আমরা আরও এগিয়ে যাব। বাংলাদেশে নারীদের ঘরের কাজের আনুমানিক মূল্য আড়াই লাখ কোটি টাকা। গবেষকেরা মনে করেন, মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) নারীর অবদান ২০ শতাংশ। সেই হিসাবে জিডিপিতে নারীর অবদান দাঁড়াবে ৪৮ শতাংশ।

২০২১ সালে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পৌঁছে দিতে নারীর এই স্বীকৃতি প্রয়োজন। এক তথ্যে দেখা গেছে, ভারতে নারীরা মজুরিহীন কাজ করেন ছয় ঘণ্টা। পুরুষেরা করেন এক ঘণ্টা। নারীর দুই ঘণ্টা মজুরিহীন শ্রম কমলে শ্রমবাজারে তাঁর ১০ শতাংশ অংশগ্রহণ বাড়বে।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) সম্প্রতি ‘জাতীয় অর্থনীতিতে নারীদের অবদান নিরূপণ: বাংলাদেশ প্রেক্ষিত’ শীর্ষক একটি গবেষণা করেছে। বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় ২০১৪ সালের মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে এ বিষয়ে একটি জরিপ সম্পন্ন হয়। জরিপে অংশ নিয়েছেন ৮ হাজার ৩২০ জন নারী এবং ৫ হাজার ৩২০ জন পুরুষ। এই গবেষণায় দেখা গেছে, ১৫ বছর বা বেশি বয়সের একজন নারী জাতীয় আয়ে অন্তর্ভুক্ত হয় না এমন কাজ গড়ে প্রতিদিন পুরুষের তুলনায় তিন গুণ করে। এ ধরনের কাজে নারীর সময় ব্যয় হয় ৭ দশমিক ৭ ঘণ্টা। অন্যদিকে পুরুষ সময় ব্যয় করে ২ দশমিক ৫ ঘণ্টা। গ্রাম ও শহর দুই জায়গাতেই এই চিত্র দেখা গেছে।

১৯৯৫ সালে বেইজিং সম্মেলনে ইউএনডিপি মানবসম্পদ উন্নয়ন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল। অর্থনীতিবিদ প্রতিমা পাল মজুমদার প্রথমআলোকে বলেন, ‘২০ বছর আগে ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছিল, বিশ্বের নারীদের মজুরিহীন শ্রমের মূল্য তিন ট্রিলিয়ন ডলার হবে। তবে আরেকটি বিষয় নিয়ে ভাবার আছে। ধরা যাক, পরিবারের মা তাঁর সন্তানের জন্য যা করেন, তা কিন্তু অমূল্য। আপনি টাকা দিয়ে এই গুণগত কাজের মূল্যায়ন করতে পারবেন না। তাহলে কীভাবে এই কাজের স্বীকৃতি বা মূল্যায়ন করব? সেটি ঠিক করতে হবে। জাতিসংঘের অন্তর্ভুক্ত ৮২টি দেশে নানাভাবে নারীর মজুরিহীন শ্রমের মূল্য নির্ধারণ করছে। তাঁদের কাছ থেকেও আমরা শিখতে পারি।’

২০১৩ সালের লেবার ফোর্স জরিপে দেখা যায়, পরিবারে মজুরিহীন যাঁরা শ্রম দেন, তাঁদের মধ্যে নারীর সংখ্যা প্রায় ৮৫ লাখ। এ ক্ষেত্রে পুরুষের সংখ্যা মাত্রা ২০-২১ লাখ। অর্থাৎ পুরুষের তুলনায় চার গুণ বেশি নারী পরিবারে মজুরিহীন শ্রম দিচ্ছেন। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের কর্মসূচি সমন্বয়কারী বনশ্রী মিত্র নিয়োগি প্রথম আলো কে বলেন, ‘সরকারের নীতিতে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য আমরা মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করছি। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গেও কথা বলব। নারীর সমান অধিকার পাওয়ার জন্য ঘরের কাজের মূল্যায়ন করতে হবে।’ এতদিন নারীদের ঘরের কাজটাকে ‘এটা কোনো কাজই না’ বলা হতো। এই আলোচনা হয়​েতা ভবিষ্যতে এনে দিবে তাঁর কাজের স্বীকৃতি।





You can be the first one to leave a comment.

Leave a Comment