Latest
Home / CPD in the Media / Bangladesh’s export may fall under a bit pressure from the Brexit: Dr Moazzem

Bangladesh’s export may fall under a bit pressure from the Brexit: Dr Moazzem

Published in The Finance Today on Saturday, 25 June 2016

Brexit Would Also Affect Negatively In Bangladesh Export

FT Online:

brexit-euro

Majority people of Britain voted in favor of Brexit through a historical referendum.

Whole world started to react about it. Although formal response from Bangladesh has not given, but prime minister Seikh Hasina gave opinion in favour of remaining in EU.  In addition, Rushnara Ali MP along with Rupa Haque, Tulip Sddique was in favor of remaining in EU. But Bangalai maximum expatriates wanted Britain will exit from EU. According to them, due to excessive flow of migrates in EU alliance countries, Bangali along with Asian people’s job opportunity to their markets being narrowed.

What’s kind effect will appear in Bangladesh, one of the famous economist D. Zahid Hossain said in this matter that the decision of Britain to exit from EU instantly will affect negatively on Bangladeshi remittance, because pound rapidly loses its prices.  Not only exit from EU, but also their outlook change may come into migration aspect.

The worst anxious of Bangldesh is export market of readymade garments.  Now, Britain not bound to give duty-free advantage in European Union

The big tension for Bangladesh is that our large export market in Europe. Through Britian’s exit from EU, other countries may take decision to exit. As a result, seeking new export market will be challenge for us. Nowadays, our economic position in Portugal, Spain, and Italy are very weak. In this regard, we have to increase diplomatic effort for keeping hold the duty-free opportunity.

BGMEA president Siddiqur Rahman said that Britai’s decision to exit from EU may affect negatively on exporting. Pound has lost its price on result publishing day. But he added that what kind of effect due to Brexit may appear, for being assure we have to wait more time.

Rushanara Ali MP said that if Brexit is successful, Bangladeshi people will be more harmed.

“It’s a comfort zone for us that there’ll be no change in terms of market facilities in the next two year,” economist Dr Khondaker Golam Moazzem told UNB on Friday.

Dr Moazzem, however, thinks Bangladesh’s export may fall under a bit pressure due to internal changes in Britain although market facilities will continue as usual.

We’ve been witnessing a good number of changes within Britain (financial market) including shares and pound plunged on leave vote,” explained the additional research director of the Centre for Policy Dialogue (CPD).

Former caretaker government adviser Dr AB Mirza Azizul Islam also said Bangladesh’s export might be affected to some extent.

“If the value of both British pound and Euro falls, there’ll be a negative impact on Bangladesh’s export,” he told UNB.

The Bangladesh Garment Manufacturers and Exporters Association (BGMEA) is also monitoring the evolving situation in the UK.

“It seems that our export to Bangladesh’s big market — the UK will be under pressure. We seek government support so that we can maintain smooth export,” BGMEA Vice President (Finance) Mohammed Nasir told the news agency.


 


Published in The Asian Age on Saturday, 25 June 2016

BD’s export may face pressure for Brexit

Though the existing market facility will remain unhurt for the next two years, Bangladesh’s export to the United Kingdom may face pressure ‘to some extent’ as Britain voted to leave the European Union (EU). “It’s a comfort zone for us that there’ll be no change in terms of market facilities in the next two year,” economist Dr Khondaker Golam Moazzem told media on Friday. Dr Moazzem, however, thinks Bangladesh’s export may fall under a bit pressure due to internal changes in Britain although market facilities will continue as usual. “We’ve been witnessing a good number of changes within Britain (financial market) including shares and pound plunged on leave vote,” explained the additional research director of the Centre for Policy Dialogue (CPD).

The London stock market plunged in the wake of the UK’s referendum vote to leave the EU. Banks were also hard hit, with Barclays and RBS falling about 30 percent.Earlier, the pound fell dramatically as the referendum outcome emerged. At one stage, it hit $1.3236, a fall of more than 10 percent and a low not seen since 1985.Dr Moazzem said if the ‘volatility’ continues in Britain’s internal economy, such situation may discourage import in Britain. “In that case, there might be an impact on Bangladesh’s export.”Former caretaker government adviser Dr AB Mirza Azizul Islam also said Bangladesh’s export might be affected to some extent.”If the value of both British pound and Euro falls, there’ll be a negative impact on Bangladesh’s export,” he told UNB.

-UNB, Dhaka


 


Published in Daily Sun on Friday, 24 June 2016

BD’s export may ultimately face pressure following Brexit

Though the existing market facility will remain unhurt for the next two years, Bangladesh’s export to the United Kingdom may face pressure ‘to some extent’ as Britain voted to leave the European Union (EU).

“It’s a comfort zone for us that there’ll be no change in terms of market facilities in the next two year,” economist Dr Khondaker Golam Moazzem told UNB on Friday.

Dr Moazzem, however, thinks Bangladesh’s export may fall under a bit pressure due to internal changes in Britain although market facilities will continue as usual.

“We’ve been witnessing a good number of changes within Britain (financial market) including shares and pound plunged on leave vote,” explained the additional research director of the Centre for Policy Dialogue (CPD).

The London stock market plunged in the wake of the UK’s referendum vote to leave the EU. Banks were also hard hit, with Barclays and RBS falling about 30 percent.

Earlier, the pound fell dramatically as the referendum outcome emerged. At one stage, it hit $1.3236, a fall of more than 10 percent and a low not seen since 1985.

Dr Moazzem said if the ‘volatility’ continues in Britain’s internal economy, such situation may discourage import in Britain. “In that case, there might be an impact on Bangladesh’s export.”

Former caretaker government adviser Dr AB Mirza Azizul Islam also said Bangladesh’s export might be affected to some extent.

“If the value of both British pound and Euro falls, there’ll be a negative impact on Bangladesh’s export,” he told UNB.

Bangladesh is now enjoying full duty- and quota-free access to the EU for all of their exports with the exception of arms and armaments under EU’s ‘Everything but Arms’ arrangement.

Since the UK left the EU, Bangladesh will have to renegotiate with the UK after two years. The decision of leaving the EU will come into effect after 2018.

The Bangladesh Garment Manufacturers and Exporters Association (BGMEA) is also monitoring the evolving situation in the UK.

“It seems that our export to Bangladesh’s big market — the UK will be under pressure. We seek government support so that we can maintain smooth export,” BGMEA Vice President (Finance) Mohammed Nasir told the news agency.

He also urged the government to incorporate their proposals in the proposed budget to keep the export sector vibrant, especially keeping the tax at source on export at 0.60 percent instead of the proposed 1.5 percent.

Explaining the changes in the UK, CPD economist Moazzem said the government should monitor the changes being taken place in Britain. “We need to see how Britain’s economy reacts in the coming days.”

He also thinks that there might be the beginning of change a bit in British companies’ fresh investment in Bangladesh and the existing investment. “Things will depend on how British companies re-stratise.”

On a positive note, the economist, however, said Governor of the Bank of England Mark Carney, following the EU referendum result, kept ready financial package for managing the ‘volatility’.

The total export and import volumes between Bangladesh and the UK during the year 2014-15 was US$ 3205.45 million and US$ 330.72 million respectively, according to available data.

In a statement, Mark Carney said the people of the United Kingdom have voted to leave the European Union and inevitably, there will be a period of uncertainty and adjustment following this result.

“There will be no initial change in the way our people can travel, in the way our goods can move or the way our services can be sold,” he said.

UK banks have raised over £130bn of capital, and now have more than £600bn of high quality liquid assets.


 


Published in The Financial Express on Saturday, 25 June 2016

Brexit to squeeze BD exports: Economists

UK investment may also falter

Ziaur Rahman

Britain’s stunning exit from the European Union (EU) will cast some immediate impacts on Bangladesh’s overall trade and business mainly for internal volatility and currency devaluation, economists and business leaders said.

The country’s export to the United Kingdom (UK), the third- largest importing country of Bangladeshi goods, is likely to take a knock in the short term as the pound sterling hit its lowest ebb since 1985 as the Britons voted 52 to 48 in Thursday’s landmark referendum to leave the continental bloc.

“The internal volatility and uncertainty over what happens next and exodus of many companies from the UK will squeeze their business and reduce the scope for export from Bangladesh,” said CPD’s Additional Research Director Dr Khondaker Golam Moazzem while talking to The Financial Express about outcome of UK’s exit from the EU.

Apparel manufacturers and entrepreneurs are also apprehending a downturn in their business on the UK market. “We are apprehending both squeeze of export orders and cut in apparel prices because of massive depreciation of the pound that makes UK’s import costlier in recent days,” said BGMEA senior Vice- President and Giant Apparels Managing Director Faruque Hassan.

One of the biggest British department store chains –British Home Stores (BHS) — recently became bankrupt, failing to pay millions of dollars to its clients in Bangladesh, said Mr. Hassan as an instance to underpin his foreboding.

The business-body leader in the country’s largest export sector apprehends much gloomy picture in the days ahead.

But in the long run, things will settle down, hoped both Mr. Moazzem and Hassan.

However, all this depends on how efficiently the UK can negotiate with the EU regarding settlement of trade-and business-related issues.  Policy Research Institute Executive Director Ahsan H. Mansur, however, foresees a long-term impact on trade and business as the British economy is likely to be severely affected by the decision to leave the EU.

“It’s a disastrous outcome, both political, economic and strategically,” said the economist, adding that Britain’s economy will significantly shrink.

The expatriate Bangladeshis living in the UK, he said, will also be affected and find difficult days to live in.

“Apparently I do not find any possibility to get benefitted from the new development following the British referendum decision. But we do not have to do anything other than observe the situation,” said another exporter, Fazlul Haque, a former president of BKMEA,

“It will cost Bangladesh with significant impact on many important issues, including trade, aid, financial transaction and transportation,” said another business leader.

“As far as Bangladesh is concerned, the cost of UK’s exit is immense as the bloc of 28 countries is the largest export market for the country,” said the leader.

Britain is set to be the first country to quit the European Union since its formation – but the ‘leave’ vote does not immediately mean Britain ceases to be a member of the 28-nation bloc. That process could take a minimum of two years.

The UK government will also have to negotiate its future trading relationship with the EU and fix trade deals with non-EU countries.

“So there is lot of time and Britain’s trade and business with partner countries of the UK depends on the outcome of its negotiations with the EU,” said Dr. Moazzem.

But, during the period, Bangladesh will enjoy equal benefits which it received from the EU.

The EU and the United States are two major markets for Bangladesh’s exports, accounting for about 60 per cent and 20 percent of the total turnover.

According to EPB, the UK is also the third single-largest destination for exports from Bangladesh. The total export and import volumes between Bangladesh and the UK during the year 2014-15 were US$ 3.205 billion and $330.72 million respectively.

Also there are over 100 British companies operating in sectors including retail, banking, energy, infrastructure, consultancy and education with main centres of operation in Dhaka, Chittagong and Sylhet.

But, following the referendum decision, many big corporate houses and trans-international companies might shift their business from the UK to the EU which might affect British investment in Bangladesh also, said Moazzem.

The European Union – better known as the EU – is an economic and political partnership involving 28 European countries. It began after World War Two to foster economic cooperation, with the idea that countries which trade together are more likely to avoid going to war with one another.

It has since grown to become a “single market”, allowing goods and people to move around, basically as if the member-states were one country.

The EU has its own currency, the euro, which is used by 19 of the member-countries, its own parliament and it now sets rules in a wide range of areas – including on the environment, transport, consumer rights and even things like mobile-phone charges.


 

 

Published in কালেরকন্ঠ on Saturday, 25 June 2016

বিশ্বজুড়ে ধাক্কা প্রভাব পড়বে বাংলাদেশেও

আবুল কাশেম ও শেখ শাফায়াত হোসেন   

বৃহস্পতিবার হাসিমুখে সস্ত্রীক ভোটকেন্দ্রে গিয়েছিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। পরদিন থমথমে মুখে ডাউনিং স্ট্রিটে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়েই পদত্যাগের ঘোষণা দেন তিনি। তাঁর ও দলের, এমনকি ব্রিটেনের অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও নীতিনির্ধারকদের সব হিসাব-নিকাশই ওলট-পালট করে দিল ওই দেশের সাধারণ মানুষ। তাদের প্রায় ৫২ শতাংশ পরিষ্কার রায় দিল ইউরোপীয় ইউনিয়নে আর নয়। এর ভূরাজনৈতিক প্রভাব কী হবে তার হিসাব নিশ্চয়ই কষছেন ব্রিটেন ও ইউরোপের অন্যান্য দেশের রাজনীতিকরা। তবে অর্থনীতিতে তাৎক্ষণিক যে প্রতিক্রিয়া পড়ল, তার দীর্ঘমেয়াদি ফল নিয়ে শঙ্কিত বিশ্বের আর্থিক বিশ্লেষকরা। তাঁদের মতে, যুক্তরাজ্যের গণভোট কেবল যুক্তরাজ্যকেই এক অনিশ্চিত যাত্রায় ঠেলে দিল তাই নয়, তার সহযাত্রী হলো সারা বিশ্ব।

যুক্তরাজ্য ইইউর সঙ্গে না থাকলে কী হবে—এ নিয়ে গুঞ্জন ছিল কয়েক মাস ধরেই। বৃহস্পতিবার পর্যন্তও একটা আশা ছিল দেশটি ইউরোপীয়  ইউনিয়নের অংশ হয়েই থাকছে। এ ধারণা থেকে বাজারে একটা চাঙ্গা ভাবও ছিল। ব্রিটেনের জনগণ ইইউর সঙ্গে থাকতে চাইছে না—শুক্রবার সকাল থেকে গণভোটের এমন ফলাফল দৃশ্যমান হতেই সুনামির ধাক্কা এসে প্রথমে লাগে স্টক মার্কেটে। ইউরোপের শেয়ারবাজার এক দিনেই খোয়ায় দুই ট্রিলিয়ন ডলার। লন্ডন, ফ্রাংকফুর্ট, প্যারিসসহ ইউরোপের বড় বড় স্টক মার্কেটগুলোতে শুক্রবার ৫ থেকে ১০ শতাংশ দর পড়ে যায়। এশিয়ার পুঁজিবাজারেও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

তিন দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় ধাক্কা খেল ব্রিটিশ পাউন্ড। শুক্রবার শক্তিশালী এ মুদ্রা মূল্য হারাল ১৮ সেন্ট, ১৯৮৬ সালের পর যা সর্বোচ্চ। ৩ শতাংশ দাম পড়েছে মুদ্রা ইউরোরও। যা ইউরো চালুর পর এক দিনে সর্বোচ্চ দরপতন। মুদ্রা ব্যবসায়ীরা বলছেন, ২০০৮ সালের আর্থিক সংকটের পর তাঁরা এ ধরনের মারাত্মক পরিবর্তন আর দেখেননি। তবে বাজারের গতি বাড়াতে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর মার্ক কারনি বিনিয়োগকারীদের এই বলে শান্ত করতে চেষ্টা করছেন যে এই হ্যাঁ-না ভোটের ফলাফল বাস্তবায়নের জন্য খুব ভালো প্রস্তুতিই তাঁদের ছিল। তিনি বলেন, অর্থনীতির ওঠানামা ঠেকাতে বাজারে হস্তক্ষেপ করতে প্রস্তুত ছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

লন্ডনের ইটিএক্স ক্যাপিটালের লেনদেন বিভাগের প্রধান জো রান্ডল বলেন, ‘এ রকম আগে কখনো দেখিনি। এ ধরনের ঘটনা জীবনে একবারই ঘটে, যা লিম্যানস ও ব্ল্যাক ফ্রাইডের থেকেও বড়।’

গতকাল দুর্দিন গেছে ডলারেরও। দাপুটে এ মুদ্রার দাম পড়ে গেছে ৪ শতাংশ, এক দিনে এত বড় পতন ১৯৯৬ সালের পর আর ঘটেনি। নিরাপদ দূরত্বে থেকেও আঁচ থেকে মুক্ত থাকতে পারেনি জাপানের মুদ্রা ইয়েন। ব্রিটেনের এফটিএসই ফিউচার্স ও জার্মানির ড্যাক্স ফিউচার্স প্রায় ৯ শতাংশ দর হারিয়েছে। ইউরো জোনের ইউরো স্টক্স ৫০ ফিউচার্সের দর ১১ শতাংশের বেশি পড়েছে। এর নেতিবাচক প্রভাব থেকে দূরে থাকতে পারবে না এশিয়া ও আফ্রিকাও। বাংলাদেশের রপ্তানি, বিনিয়োগ ও সহায়তার ওপরও ওই ধাক্কার ঝোড়ো হাওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

বাজারে অর্থ সরবরাহে ঘাটতি হলে প্রবাহ বাড়ানোর প্রস্তুতি রয়েছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড, ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংক ও পিপলস ব্যাংক অব চায়না। আর্থিক বাজারে কোনো অসংগতি  দেখা দিলে সুদহার বাড়ানোর চিন্তা থেকে সরে আসতে হতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভকেও। বরং তখন নীতিমালা সহজ করার নতুন পথ খুঁজতে হবে বিশ্বের প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোকে।

মুদ্রা ও পুঁজিবাজারের পতনের ফলে ওই অঞ্চলের বন্ড বাজারও তার গতি হারিয়ে খাদে নামতে শুরু করবে। এমনিতেই ওই অঞ্চলের ব্যাংকগুলোর সুদের হার কমতে কমতে প্রায় শূন্যের কাছাকাছি চলে এসেছে। পণ্য আমদানি ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় খেই হারানো আর্থিক খাতকে খাপ খাইয়ে নিতে ভোগব্যয় কমে যাবে বিশ্বের বড় এই বাজারের। তাছাড়া আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক চুক্তিগুলোও শিথিল হয়ে আসবে। একসঙ্গে এতগুলো সংকটের দোলাচলে পড়ে গোটা বিশ্বের অর্থনীতির ভিতই কেঁপে উঠবে। আর সেই ঢেউ এসে লাগবে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোয়, যাদের রপ্তানির বড় বাজার এই ইউরোপ।

জাপানের সুমিতুমু করপোরেশন গ্লোবাল রিসার্চের প্রেসিডেন্ট বব তাকাই বলেছেন, সারাবিশ্বের জিডিপিতেই এর প্রভাব পড়বে। এশিয়ার বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ চীনও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে জানিয়েছেন চায়না ইন্টারন্যাশনাল ক্যাপিটাল করপোরেশনের বিশ্লেষক উই ঝিয়ান। তিনি বলেন, চীন ইউরোপের বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার। ব্রিটেনের বিচ্ছেদ উদীয়মান অর্থনীতি হিসেবে চীনকেও বেকায়দায় ফেলবে। ভারতের জন্যও ব্রেক্সিট বড় ধরনের ধাক্কা হয়ে আসছে।

ইংল্যান্ড বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হলেও লন্ডন পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম বাণিজ্যিক কেন্দ্র। বিশ্বের নামকরা প্রতিষ্ঠানগুলোর অফিস রয়েছে সেখানে, রয়েছে বিপুল বিনিয়োগও। লন্ডন থেকেই পুরো ইউরোপে বাণিজ্য পরিচালনা করছে কম্পানিগুলো। ইউরোপের সঙ্গে ইউকের এই বিচ্ছেদ ওই সব কম্পানির অফিসগুলো গুটিয়ে নেওয়ার বার্তা দিচ্ছে। যার প্রভাব পড়বে বৈশ্বিক করপোরেট জগতে। সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হবে ইউকে ও ইউরোপের অন্য ২৭টি দেশ। তবে সেই হাওয়া থেকে নিজেকে শতভাগ সুরক্ষা দিতে পারবে না কোনো দেশই।

ইউরোপ থেকে ব্রিটেনের এই বিচ্ছেদের বেদনা বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও বড় হয়ে দেখা দেওয়ার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা। কারণ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে ব্রিটেনেও বাংলাদেশ কেবল অস্ত্র বাদে সব পণ্য শতভাগ শুল্কমুক্ত সুবিধায় রপ্তানি করতে পারছে। যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানির পর ব্রিটেন বাংলাদেশি পণ্যের বৃহত্তম বাজার। বিচ্ছিন্ন ব্রিটেনে বাংলাদেশের শুল্কমুক্ত সুবিধা থাকবে কি না, তা নিয়ে চিন্তায় পড়েছেন এ দেশের রপ্তানিকারকরা। এ ছাড়া ব্রিটেন বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ডিএফআইডি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হিসেবে পৃথকভাবে ঋণ ও অনুদান সহায়তা দিয়ে আসছে। ব্রেক্সিটের ধাক্কা সামলাতে না পারলেও দান-অনুদান দেওয়া থেকে হাত গুটিয়ে নিতে হবে দেশটিকে। এর প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের ওপর। তবে এসব প্রভাব পড়তে অন্তত বছর দুই সময় লাগবে। তার আগে ব্রিটেন, ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে যে ধাক্কা লাগছে, তার ফলে আবারও ২০০৮ সালের মতো ভয়াবহ মন্দার আভাস দেখছেন বিশ্ব অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা।

ব্রিটেনের এই বিচ্ছেদ যে বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব ফেলবে, তা আগে থেকেই আঁচ করতে পারছিলেন সরকারের নীতি-নির্ধারকরা। তাই জাপানে অনুষ্ঠিত জি-৭ আউটরিচ সম্মেলনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনকে অনুরোধ করেন, যাতে ইউরোপের সঙ্গেই থাকে ব্রিটেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম নিজে লন্ডন গিয়ে গণভোটে ইউরোপের পক্ষে ভোট দিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আহ্বান জানান। এ ছাড়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ এমপি রোশনারা আলী ও টিউলিপ সিদ্দিকও ব্রেক্সিটের বিপক্ষে প্রচারণা চালান।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গণভোটে ইইউ ছাড়ার সিদ্ধান্ত হয়ে যাওয়ায় ‘লিসবন’ চুক্তির আওতায় যুক্তরাজ্যকে নতুন পর্যায়ে যেতে দুই বছর সময় লাগবে। এ সময়কাল ইউরোপীয় ইউনিয়নের আওতায় যে বাজার সুবিধা পাওয়া যায় তা বহাল থাকবে। বাংলাদেশ বর্তমানে ‘এভরিথিং বাট আর্মস’ (ইবিএ) সুবিধার আওতায় ইইউয়ের বাজারে শুল্ক ও কোটামুক্ত পণ্য রপ্তানি করে। কিন্তু দুই বছর পর যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে চলে যাওয়ার কারণে ইবিএ কর্মসূচির আওতায় শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা বাংলাদেশ পাবে না। সে জন্য নতুন করে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে দরকষাকষি করে এই সুবিধা আদায় করতে হবে। কারণ ২০১৩-১৪ অর্থবছরে বাংলাদেশ যুক্তরাজ্যে ২ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে। বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য তৃতীয় বৃহত্তম দেশ। পাশাপাশি ইউরো দুর্বল হলে বাংলাদেশের রপ্তানি আয়েও বিরূপ প্রভাব পড়বে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্য বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত বাংলাদেশিদের ক্ষতির কারণ হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী। তিনি বলেন, এতে বাংলাদেশিরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আনুপাতিক হিসাবে ব্রিটিশদের চেয়ে বাঙালিসহ অন্য অভিবাসীরাই বেশি চাকরি হারাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ সংখ্যা অন্তত পাঁচ লাখ হতে পারে। গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

রুশনারা বলেন, ইইউ থেকে যুক্তরাজ্য বেরিয়ে গেলে এক ভয়ানক অর্থনৈতিক চাপে পড়তে হবে। আর এই অর্থনৈতিক দুরবস্থার কারণে বাংলাদেশিসহ এথনিক মাইনরিটির লোকজন বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষ জয়ী হওয়ায় এই ফলাফল যুক্তরাজ্যের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ভবিষ্যেক বিরাট চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন লেবার পার্টির এমপি টিউলিপ সিদ্দীক। তিনি বলেন, ‘গণভোটের পরিণতি ও অনাগত দিনে আমাদের সামষ্টিক ভবিষ্যৎ নিয়ে এখন বৃহত্তর পরিসরে আলোচনা শুরু করতে হবে।’

অর্থনীতি বিশ্লেষক মামুন রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইংল্যান্ডের এই বিচ্ছেদ ব্যাপক আইনগত ও অর্থনৈতিক প্রভাব সৃষ্টি করবে। পুরো ইউরোপের অর্থনীতি এক দিনেই টালমাটাল হতে শুরু করেছে। এশিয়ার পুঁজিবাজারে ধস নামতে শুরু করেছে। ব্রিটেন তাদের অর্থনীতিকে ঢেলে সাজাতে কী ব্যবস্থাপনা নেবে সেটাও বিবেচনার বিষয়। আর তার সঙ্গে খাপ খাওয়াতে গিয়ে আমাদের মতো দেশগুলোর শুল্ক ও কর ব্যবস্থাপনায়ও বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে হবে কি না তা দেখতে হবে। তবে বাংলাদেশে এর প্রভাব কতটুকু পড়বে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলার সময় এখনো আসেনি।’

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) অতিরিক্ত গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম কালের কণ্ঠকে বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসতে যুক্তরাজ্যের আরো দুই বছর সময় লাগবে। এই সময় পর্যন্ত যুক্তরাজ্য ইইউয়ের সব ধরনের সুযোগ-সুবিধাই পাবে। তিনি আরো বলেন, ইইউয়ের বাইরে চলে গেলেও ইইউভুক্ত দেশগুলো থেকে পণ্য আমদানিতে যুক্তরাজ্য একই ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতে পারে। যেমনটা এখন পাচ্ছে তুরস্ক। যদি সেটা না পায়, তাহলে যুক্তরাজ্যের পণ্য আমদানি খরচ বেড়ে যেতে পারে। এ ছাড়া ইইউয়ের বাইরের দেশ, বিশেষ করে স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্য যদি এখনকার মতো সুযোগ-সুবিধা না পায়, তাহলে দেশটির পণ্য আমদানিতে উচ্চ শুল্ক দিতে হবে। এতে দেশটির পণ্য আমদানিতে অনিশ্চয়তা তৈরি হতে পারে; যার প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশের ওপরও পড়বে। কেননা ব্রিটেন বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানির তৃতীয় বৃহত্তম দেশ। তা ছাড়া দেশটি থেকে আর্থিক যেসব অনুদান পাওয়া যেত তাও আর আগের মতো মিলবে না হয়তো। এতে বিদেশি অনুদাননির্ভর কাজে কিছুটা প্রভাব পড়তে পারে।

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইউকে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম রপ্তানি বাজার। সেখানে যে অবস্থা শুরু হয়েছে, তাতে আমরা বড়সড় একটা ধাক্কা খাবই। পাউন্ডের দাম কমে গেছে। কমে গেছে ইউরো ও ডলারের দামও। ফলে যুক্তরাজ্য ছাড়াও ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্য ২৭টি দেশ এবং যুক্তরাষ্ট্রে আগের দামে পোশাক বা অন্য পণ্য রপ্তানি করলে বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। আমরা আশা করছি ব্রিটেন খুব দ্রুত তাদের অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা কাটিয়ে উঠবে। না হলে সার্বিকভাবে ব্রিটেনসহ সমগ্র ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রেও বাংলাদেশের রপ্তানি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক আলী রীয়াজ গতকাল শুক্রবার দুপুরে বলেছেন, যুক্তরাজ্যের সিদ্ধান্তের কোনো রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশে পড়বে বলে মনে হয় না। তবে অবশ্যই এর অর্থনৈতিক প্রতিক্রিয়া পড়বে। কারণ বাংলাদেশ ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে শুল্কমুক্ত যে সুবিধা পায় তার আওতায় ব্রিটেনে রপ্তানি করে। ২০১৩-১৪ অর্থবছরের হিসাবে ইইউতে বাংলাদেশের মোট রপ্তানির পরিমাণ প্রায় এক হাজার ৪০০ কোটি ডলার। এর মধ্যে কমপক্ষে ২২০ কোটি ডলার রপ্তানি হয়েছে যুক্তরাজ্যে।

আলী রীয়াজ আরো বলেন, যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম রপ্তানি বাজার। আগামীতে সেখানে আলাদা করে আলোচনা করে রপ্তানির পথ তৈরি করতে হবে। পাউন্ডের মূল্যমান হ্রাস হলে আয়ের পরিমাণ কমবে। বাংলাদেশে যেসব বিদেশি বিনিয়োগ আসে তার মধ্যে যুক্তরাজ্য হচ্ছে দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎস। এর ওপরেও প্রভাব পড়বে বলেই ধারণা করা যায়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নিজের নাম গোপন রাখার শর্তে গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, বাংলাদেশ ইংল্যান্ডের কাছ থেকে দুভাবে সহায়তা পায়। একটি দেশটির আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ডিএফআইডির মাধ্যমে। ডিএফআইডি বছরে বাংলাদেশকে ১২ কোটি পাউন্ড ঋণ ও অনুদান দেয়। ব্রিটেনের অর্থনীতি দুর্বল হলে এখানে কাটছাঁট করতে পারে দেশটি। এ ছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন ২০২০ সাল নাগাদ বাংলাদেশকে ৬৯ কোটি ইউরো ঋণ সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সেটি হয়তো পাওয়া যাবে। তবে ইআরডি মনে করছে, ব্রিটেনের এই বিচ্ছেদ সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশকে দেওয়া সহযোগিতা ৫ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে পারে।

 

Comments

Check Also

south-asia-ready-for-fdi-promotion

South Asia ready for FDI promotion

Author: Khondaker Golam Moazzem The article titled “South Asia ready for FDI promotion” was published …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *