Latest

Professor Mustafizur Rahman on pay raise of civil servants

The CPD executive director opined that new pay hike should not fuel inflation, and inflation accounting should not be the only concern, considering the current status of money supply, revenue expenditure and development expenditure.

 

Read more news reports on the topic

Published in The Financial Express on Tuesday, 8 September 2015.

Economists see no inflationary pressure

FE Report

The latest pay hike of the government employees will not create any new inflationary pressure, according to the country’s economists.

The government, however, needs to strengthen vigilance, so that unscrupulous quarters can’t take any undue advantages, they opined.

The economists expressed these observations while talking with the FE on implication of the implementation of eighth national pay-scale.

The government on Monday approved the new pay-scale, fixing basic pay at a maximum of Tk 78,000 and a minimum of Tk 8,250.

Professor of Economics of University of Dhaka M A Taslim said only Tk 150 billion per annum is linked with the pay hike for the government employees, which is very nominal compared to the country’s national income.

He said even the payment is being given in phases, which would not create any inflationary pressure.

Professor Taslim said most of the government employees live in big cities, including Dhaka and Chittagong, where some kind of pressure may arise.

The house owners may raise rent, and rickshaw pullers and bus owners may ask for increased fares, he said.

Experts and analysts think usually the cost of living increases following announcements of new pay-scale due to price hike of essential commodities and rise in house rent.

They said these are happening arbitrarily, which need to be contained strictly by the agencies concerned to help ease living of commoners.

“The pay hike is a rational step,” said Professor Mustafizur Rahman, executive director of Centre for Policy Dialogue (CPD).

“It was six years ago when the government hiked salary of its employees. In the last six years average inflation has increased by 40 per cent, and so real income of fixed-income people like the government employees eroded, their purchasing power also declined.”

“But in the last six years, nominal national income has increased by 60 per cent, and the government employees deserve some benefit of the increase in national income,” he added.

“Again, real GDP has increased by 30 per cent, reflecting advancement of the national economy.”

The CPD executive director also opined that new pay hike should not fuel inflation, and inflation accounting should not be the only concern, considering the current status of money supply, revenue expenditure and development expenditure.

“Other factors, including current flood, may fuel inflation.”

The economist was of the view that some unscrupulous quarters might take advantage of the pay hike.

“The sudden rise in house rent and transport fare on the plea of pay hike is not acceptable at all,” he added.

“The government should enforce legal measures to contain any such bad move. Otherwise real benefit of the pay hike will be eroded.”

Professor Mustafiz, however, pointed out that relevant reforms to improve the quality of service delivery and efficiency of the government employees should be done in parallel.

“It is important to implement the public service act for ensuring greater transparency and accountability of the government employees,” he added.

Dr Ahasan H Mansur, executive director of Policy Research Institute (PRI), opined that the latest pay hike might be seen as an offsetting measure of limited increase in social sector expenditures in the budget for FY 16.

“The government increases allocations on social sectors little in the budget, and so the latest pay hike will not make any budgetary pressure,” he said while talking with the FE.

The economist also opined that the pay hike would not create any additional or excessive demand peruse, and so there would not be any inflationary pressure.

“The central bank should continue its present monetary stance,” he added.

Dr Mansur also said some sector specific hike, like – house rent, may be there, but again regular trend of inflation would not be affected.

Inflation rate, determined on the basis of consumer price index, stood at 6.17 per cent in August, which was 6.36 per cent in July.

 

 

Published in The Daily Star

Bangladesh gives final nod to new pay scale
Up to 101pc hike in public servants’ salaries; increased basic salary effective from July this year, allowances from July next year

Staff Correspondent

Basic salary of civil servants will almost double under the new national pay scale with employees in the lower rungs getting the highest percentage of raise.

The new pay structure for civil servants and members of the armed forces was approved yesterday at a cabinet meeting with Prime Minister Sheikh Hasina in the chair.

In the highest grade, basic salary will rise by 95 percent to stand at Tk 78,000 (fixed) and in the lowest grade by 101 percent to become Tk 8,250. There are 20 grades.

Besides, the cabinet secretary or the principal secretary or those in equivalent posts will get Tk 86,000 (fixed) and a senior secretary Tk 82,000 (fixed).

In the new scale, a festival bonus for the Bangla New Year has been introduced but time scale and selection grade have been abolished. A new annual increment system has also been introduced.

The cabinet approved the new scale after considering reports of the National Pay Commission, led by former Bangladesh Bank governor Mohammed Farashuddin, and the review committee, headed by Cabinet Secretary Musharraf Hossain Bhuiyan.

Briefing reporters after the meeting at the conference hall of Cabinet Division, Musharraf said that the new basic salary would be effective from July 1 this year, and the new bonus and increment from July 1 next year.

 

ADVERTISEMENT

He, however, said government employees will start getting basic salary and arrears under the new pay scale as soon as a circular is issued in this regard.

A finance division official said it may take them at least a month to issue the circular, meaning the employees will be able to draw their increased salary from November.

Musharraf said the government will require an additional Tk 15,904 crore to implement the salary increase this fiscal year. In the next FY it will need an additional Tk 23,828 crore as the new bonus and increment will be given from next year.

The cabinet secretary said the government’s revenue income has been increasing every year and hence the government won’t be under any pressure to implement the new scale.

He also said the cabinet took another important decision that from now on there will be no classification between government employees of different classes e.g. class one, class three. Their identity will be determined by their grade. In matters of attesting photos or documents, an employee will be designated by his/her grade.

 

EQUAL RANKS FOR 3 SERVICES’ CHIEFS

Ranks of air and navy chiefs will be upgraded to the rank of the army chief. The salary of the chiefs of three forces would be Tk 86,000 (fixed), which is equal to the salary of the cabinet secretary and the principal secretary to the Prime Minister’s Office, Musharraf said.

Currently, the ranks of navy and air chiefs are equivalent to the rank of a lieutenant general in the army and their salary is Tk 42,000. The chief of army staff gets Tk 45,000 with the rank of general, he said.

The navy chief’s current vice-admiral rank would be made admiral while the air chief’s air marshal rank would be air chief marshal.

 

NEW ALLOWANCE

Public servants will get 20 percent of their basic salary as an extra bonus for the Bangla New Year in addition to other festival bonuses.

The cabinet secretary said the existing festival bonuses are religion-based and employees receive it at different times. But the new bonus will be given for all at the same time.

 

MAJOR CHANGE IN INCREMENT

The cabinet has scrapped the time scale and the selection grade as per recommendations by the pay commission and the review committee.

Government employees are offered these increments when they do not get promotion in due time. But large-scale corruption takes place before these increments are given and hence a new system has been introduced to check such irregularities.

From the sixth to the 20th grade, the yearly increment will be five percent of the basic salary on incremental basis.

In the fifth grade, it will rise by 4.5 percent, in the third and fourth grades by four percent and in the second grade by 3.75 percent.

Currently, an increment is given on the basis of an employee’s joining date and promotion. From now on, however, the increment will be given in July every year irrespective of one’s joining or promotion.

The cabinet secretary said the time scale is discriminatory and some get it while some are deprived. The selection grade is more discriminatory.

He said all will benefit under the new increment system.

“The cabinet thinks a universal benefit system is more logical than the one reserved for a handful of people, posts and organisations”, said Musharraf.

 

MPO TEACHERS

The cabinet secretary said teachers under the MPO will get salary from July 1 as per the new scale.

However, the finance division will make a separate review to determine who are eligible to get MPO as per the existing criteria, he said.

Both the pay commission and the review committee have recommended that teachers under MPO should be given enhanced salary six months after the pay hike for government employees is implemented.

 

UNIVERSITY TEACHERS

Musharraf said the cabinet has discussed university teachers’ demand for salary increase but instant decision cannot be taken in this regard. So, decisions will be taken later as per the cabinet committee’s recommendations.

However, until a decision is reached, university teachers will get salary under the new scale.

 

CHANGES IN ALLOWANCE SYSTEM

Currently, government employees including defence staffs, police and Rab get 12 to 70 percent of their basic salary as special allowance.

But under the new scale, special allowance has been fixed. Their allowance  will not decrease due to the system; it will rather increase in some cases.

If this change was not brought in the system, this allowance would be close to the basic pay in many instances, Musharraf said, explaining.

However, house rent allowance will continue  to be paid under the present system, he said.

 

EXPERT OPINION

Prof Mustafizur Rahman, executive director of Centre for Policy Dialogue (CPD), said the new pay scale for the government employees is justified given the size of the economy, revenue and inflation.

“The hike will not contribute to any significant inflationary pressure,” Prof Rahman told The Daily Star yesterday. “But the government has to be careful so that house owners cannot hike rents illogically.”

The CPD boss is also unhappy to see that the government did not take any initiative, particularly reforms of the public institutions, to increase productivity of its employees.

“I expected that the government would enact Public Service Act and take other institutional reforms in parallel with the new pay scale. But it did nothing like that,” Prof Mustafizur said.

According to him, reforms are needed to make public servants productive, accountable and transparent.

 

 

Published in Dhaka Tribune

Pay scale, energy price double trouble

Kayes Sohel

The increase in public servants’ salaries is feared to disturb common people’s budget as consumers are already reeling from the recent gas and power tariff hikes.

Economists suggest the government should strongly monitor the situation to check inflation as house rent, transport cost and other service costs tend to rise following hike in energy prices and wage.

The cabinet yesterday approved the eighth pay scale for public servants – six days after the new tariffs had been announced.

Under the new rates, retail customers will have to spend 2.93% more on average on electricity and Tk200 extra on gas from this month.

In contrast to the economists’ view, however, Senior Finance Secretary Mahbub Ahmed yesterday told the Dhaka Tribune

that implementation of the new pay scale would create huge demand and, as a result, local production and consumption would increase.

He said inflation will not increase in the local market because the government has already estimated inflation in the new pay scale.

“Taka is now in a bullish trend, and so the domestic inflation will not peak up,” he said.

Former governor of Bangladesh Bank Dr Salehuddin Ahmed said: “Obviously, there will be an indirect effect [of the latest pay hike] on inflation.”

He said whenever salary and energy prices are raised, commodity prices, house rent and other services costs tend to increase, which ultimately contributes to inflation.

Although the gas and power tariff hike is not too high, it will have an impact on transport cost.

Rising inflation might make consumers cautious while spending, Salehuddin said, suggesting that coordinated action plan is important now when fuel oil price falls on the global market to reduce burden on the consumers.

Professor Mustafizur Rahman, executive director of the Centre for Policy Dialogue, said the ongoing flood might disrupt the supply chain, putting a pressure on inflation in the days to come.

The government should observe the situation so that no one can increase transport fares and house rents taking advantage of the pay scale hike, he said.

“Pay scale hike was needed to adjust with the inflation that rose 45% and nominal national income 70-75% after the previous rise.”

Bangladesh Bank in its latest monetary policy statement tried to find the relationship between inflation and pay scale hike.

Inflation rates after the third and fourth pay scales showed downward trends although they had risen before the announcements.

The fifth, sixth and seventh pay scales were followed by rising inflation rates, but despite that trend it would be unwise to conclude that the eighth pay scale would also follow suit, the central bank policy statement says.

“Inflation rates were caused by a variety of factors during different pay scale periods. The major factors reported were: higher prices of oil and food items in the international market, distortions in supply side factors, natural calamities/disasters, political instability, and disruption in domestic and/or global food production,” it says.

Other factors mentioned in Bangladesh Bank’s annual reports include effects of private credit expansion, high government borrowing, sharp depreciation of taka, disruption in industrial production, food supply shortage, and pay hikes.

However, except a few well-documented factors such as oil price hike, high food prices in the international market, supply shortage caused by natural calamities or low global production and political instability, it is difficult to clearly attribute to which factors led to higher inflation, the central bank said.

 

 

Published in Prothom Alo

বেতন বৃদ্ধি ইতিবাচক, চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ

তানভীর সোহেল

অষ্টম পে-স্কেল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে স্বস্তি আনবে। এটা তাঁদের ও সমাজের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তবে এই বেতন বৃদ্ধির কারণে সরকারের মূল চ্যালেঞ্জ হবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখা।

আজ সোমবার মন্ত্রিপরিষদ অষ্টম পে-স্কেল অনুমোদন করেছে। পে-স্কেল অনুমোদনের পর প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপকালে সাবেক ও বর্তমান সরকারি কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদেরা এ কথা বলেন।

অবশ্য তাঁরা মনে করেন, পে-স্কেল হওয়ার পর কেউ কেউ অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করবেন। বিশেষ করে কোনো কোনো বাড়িওয়ালা অতীতে পে-স্কেল হওয়ার পর বাড়িভাড়া বাড়িয়েছেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোর প্রবণতাও দেখা গেছে। সরকার ও বিভিন্ন সংস্থাকে এ ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। এ ধরনের অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার প্রবণতা বন্ধ করা গেলে পে-স্কেলের সুফল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যেমন পাবেন, সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষও পাবেন।

সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার প্রথম আলোকে বলেন, নতুন পে-স্কেল অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার করবে। সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির কারণে তাঁদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়বে। ফলে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন স্তরও এর সুবিধা পাবে। তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জীবনযাপনে স্বাচ্ছন্দ্য আসবে। এটি তাঁদের জন্য খুবই ইতিবাচক হবে।

আলী ইমাম বলেন, বেতন বৃদ্ধির কোনো অপকারিতা নেই। কিন্তু দেখা যায় কেউ না কেউ এর কারণে অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করবে। এটা রুখতে হবে।

কয়েকজন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, পে-স্কেল অবশ্যই তাঁদের জন্য স্বস্তি আনবে। তবে এর পাশাপাশি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে মেধাকে গুরুত্ব দেওয়া, পদোন্নতির ক্ষেত্রে রাজনৈতিক পরিচয় বিবেচনায় না এনে যদি কর্মকর্তার যোগ্যতাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়, তবে এর প্রভাব শতভাগ ইতিবাচক হবে।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, এবার বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি হবে বলে মনে হয় না। বেতন বৃদ্ধি হওয়াটা দরকার ছিল। কেননা ছয় বছর পর নতুন পে-স্কেল এসেছে। এই সময়ের মধ্যে সরকারি চাকুরেদের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। তাই ক্রয়ক্ষমতার নিরিখে ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির আলোকে বেতন বাড়ানোটা দরকার ছিল।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক বলেন, বেতন বৃদ্ধির কারণে যারা অনৈতিক সুবিধা নিতে চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে সতর্ক থাকতে  হবে। সরকারি চাকুরেদের স্বস্তি যেন না চলে যায়, সেদিকে সরকারকে নজর দিতে হবে।

 

 

Published in Samakal

নতুন বেতন কাঠামো
মূল্যস্ফীতির শঙ্কা!

সমকাল প্রতিবেদক

নতুন বেতন কাঠামো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের স্বস্তি দেবে। দীর্ঘ জল্পনা-কল্পনার পর এ বেতন কাঠামোর অনুমোদন সব শ্রেণী ও পেশার আলোচনার কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। পণ্যমূল্যের বাজারে এর প্রভাব কতটুকু পড়বে তা নিয়ে ভাবছেন অনেকেই। তবে বেশিরভাগই মনে করেছেন জিনিসপত্রের দাম বাড়তে পারে।

ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদদের মতে, মূল্যবৃদ্ধির এ হার নিয়ন্ত্রণে রাখা না গেলে চাপে পড়বেন নতুন বেতন কাঠামোর বাইরে থাকা জনগণ। এমনকি সুবিধাভোগী সরকারি চাকরিজীবীরাও এর সুফল পাবেন না, যা মূল্যস্ফীতিকে উস্কে দিতে পারে। সরকারের জন্য এটি মূল চ্যালেঞ্জ হবে বলে মনে করছেন তারা।

গতকাল সোমবার মন্ত্রিপরিষদে অষ্টম পে-স্কেল অনুমোদনের পর দিনের সবচেয়ে আলোচিত খবর ছিল এটি। চাকরিজীবীরা ছাড়াও সব শ্রেণী ও পেশার মানুষের আলাপচারিতায় ছিল বেতন বৃদ্ধির খবরের বিষয়টি। সমকালের সঙ্গে আলাপকালে অনেকেই বলেছেন, বেতন বৃদ্ধির সুযোগ নিতে চাইবেন অনেকেই। বিশেষ করে বাড়িওয়ালারা ভাড়া বাড়ানোর জন্য উঠেপড়ে লেগে যাবেন। অতীতে পে-স্কেল বাড়ানোর সময় এমনটা হয়েছে।

ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদদের অনেকেই বলেন, নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল থাকার সম্ভাবনা খুবই কম। ব্যবসায়ীদের মধ্যে দাম বাড়ানোর প্রবণতা দেখা দেবে। এ জন্য সরকারের বিভিন্ন সংস্থাকে কৌশলী ভূমিকা নিতে হবে। পাশাপাশি বাজার তদারকি জোরদার করতে হবে। বেতন বৃদ্ধির খবরের অনৈতিক সুবিধা যাতে কোনো শ্রেণী নিতে না পারে সেজন্য সরকারকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।

অর্থ সচিব মাহবুব আহমেদ বলেন, বেতন বৃদ্ধির ফলে মূল্যস্ফীতির আশঙ্কা নেই। অতীতে দেখা গেছে, পে-স্কেলের পরও বড় ধরনের মূল্যস্ফীতি হয়নি। গত ছয় বছরে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ভালো ছিল।

গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সমকালকে বলেন, নতুন বেতন কাঠামোর কারণে মূল্যস্টম্ফীতি তেমন বাড়বে না। তবে বাড়িভাড়া ও পরিবহনসহ বিভিন্ন সেবা খাতে অস্থিরতা বাড়তে পারে। এসব নিয়ন্ত্রণে সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে।

অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন, বেতন বৃদ্ধির ইতিবাচক দিক হলো, সরকারের আর্থিক সক্ষমতা বেড়েছে। রাজস্ব আয় বেড়েছে। তবে সরকার যেহেতু ব্যাংক থেকে টাকা না নিয়েই বরাদ্দ বাড়াচ্ছে, তাই বাজারে প্রভাব ফেলবে না।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ সমকালকে বলেন, বেতন বাড়ায় বাজারে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। এখন বাজারে পণ্য আছে, ক্রেতা কম। এ সুবিধার ফলে অনেকের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজারে ক্রেতা বাড়বে। এতে অর্থনীতিতে আরও গতি আসবে। শিল্প উৎপাদন খাতেও এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে তিনি মনে করেন।

এফবিসিসিআইর সাবেক সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়লেও সবার আয় বাড়ছে না। সব শ্রেণী-পেশায় সবার আয় বাড়ানো সম্ভব হলে ভালো হতো।

 

 

Published in Jugantor

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখাই চ্যালেঞ্জ

মামুন আব্দুল্লাহ

অষ্টম জাতীয় পে-স্কেল বাস্তবায়নের ঘোষণায় নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষকে আরও চাপের মুখে ফেলবে। সম্প্রতি গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোয় মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে। এখন সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নতুন বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা বাস্তবায়ন হওয়ায় বাড়িভাড়া, সেবা খাত ছাড়াও খাদ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির আশংকা তৈরি হয়েছে। নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে মূল্যস্ফীতির হার নিয়ন্ত্রণে রাখাই হবে সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। তবে সরকারের দাবি বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে মূল্যস্ফীতি বাড়ার কোনো যুক্তি নেই। কারণ বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের বাড়তি অর্থ চলতি বাজেটে বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বাজারে নতুন কোনো অর্থ সরবরাহ বাড়বে না।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে পে-স্কেল অনুমোদনের পর এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদদের কাছ থেকে ভিন্ন ভিন্ন মত পাওয়া গেছে। বর্তমানে বাজারে চাল ছাড়া অন্য সব পণ্যের দাম বেড়েছে। যদিও সরকারি হিসাবে পদ্ধতিগত ত্রুটির কারণে সঠিক চিত্র ফুটে উঠছে না। নতুন করে নতুন বেতন ঘোষণায় দ্রব্যমূল্যকে আরেক দফা উসকে দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এ অবস্থা উত্তরণে সরকারকে বেতন প্রদানের ক্ষেত্রে কিছুটা কৌশলী হতে হবে।

এ প্রসঙ্গে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, পে-স্কেল বাস্তবায়নে মূল্যস্ফীতি বাড়ার কোনো কারণ নেই। তিনি ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, নতুন পে-স্কেল বাস্তবায়নের জন্য যে বাড়তি অর্থের প্রয়োজন তা চলতি বাজেটেই বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বাজারে নতুন কোনো অর্থের সরবরাহ হবে না। ফলে মূল্যস্ফীতির হার বাড়বে না।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে জানান, পে-স্কেল হওয়ার পর কেউ কেউ অনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করবে। বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়ানো ছাড়াও বাড়িভাড়াসহ অন্য সেবার ব্যয় বাড়িয়ে দেবে। যদিও মোট জনগোষ্ঠীর তুলনায় সরকারি চাকরিজীবীর সংখ্যা খুবই নগণ্য। তারপরও নিত্যপণ্যের বাজারে এর কিছুটা প্রভাব পড়বেই। এছাড়া নন-ফুড (খাদ্যবহির্ভূত) খাতেও মূল্যস্ফীতি বেড়ে যেতে পারে। তিনি বলেন, বিভিন্ন কারণে চাল ছাড়া নিত্যপণ্যের দাম চড়া। পে-স্কেল ঘোষণার ফলে এটি আরও একটু উস্কে দিতে পারে, যা নিয়ন্ত্রণ করা চ্যালেঞ্জ হতে পারে। তাই বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে সরকারকে কৌশলী হতে হবে।

গবেষণা সংস্থা বিআইডিএসের সাবেক মহাপরিচালক এমকে মুজেরী যুগান্তরকে বলেন, শুধু জনসংখ্যা নয়, মোট চাকরিজীবীর মধ্যে সরকারি চাকরিজীবী ২০ শতাংশ। ২০ শতাংশ চাকরিজীবীর বেতন বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতিতে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে না। পড়লেও সামান্য পড়তে পারে। তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তারা বাড়তি বেতনের টাকা কোথায় ব্যয় করে সেটা দেখার বিষয়। অর্থ ব্যয়ের খাতের ওপর নির্ভর করবে কোন খাতে মূল্যস্ফীতি বাড়বে। তবে মূল্যস্ফীতি যেন না বাড়ে সেজন্য সরকারি কর্মকর্তাদের বেতন একবারে প্রদান না করে কিস্তিতে পরিশোধের পরামর্শ দেন তিনি।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির প্রয়োজন ছিল। এ বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি হবে বলে মনে হয় না। তবে যারা এ বিষয়টিকে পুঁজি করে অনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করবেন, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে।

 

 

Published in Bhorer Kagoj

মন্ত্রিসভায় অষ্টম বেতন কাঠামো অনুমোদন
সর্বোচ্চ মূল বেতন ৭৮,০০০ ও সর্বনিম্ন ৮,২৫০ টাকা

কাগজ অনলাইন প্রতিবেদক

সর্বোচ্চ মূল বেতন ৭৮ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন মূল বেতন আট হাজার ২৫০ টাকা নির্ধারণ করে সরকারি কর্মচারীদের জন্য নতুন অষ্টম বেতন কাঠামোর অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। একইসঙ্গে সশস্ত্রবাহিনীর জন্যও নতুন বেতন কাঠামো অনুমোদন করেছে সরকার। এমপিওভুক্ত শিক্ষকরাও নতুন বেতন কাঠামো অনুসারে বেতন-ভাতা পাবেন। নতুন স্কেলে এবার থেকে বাংলা নববর্ষ ভাতা যুক্ত করা হয়েছে। নতুন বেতন স্কেলে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাদ দেয়া হয়েছে। নতুন এই কাঠামোর মূল বেতন এ বছরের ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে। আর ভাতা কার্যকর হবে আগামী ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে। এর আগে সর্বশেষ ২০০৯ সালের ১ জুলাই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাড়ানো হয়। গতকাল সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে নতুন এ বেতন কাঠামোর এ অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা বলেন, এবারের বেতন কাঠামোয় ২০টি গ্রেডই থাকবে। সর্বোচ্চ গ্রেডে বেতন হবে ৭৮ হাজার টাকা, কোনো ইনক্রিমেন্ট থাকবে না, ফিক্সড। সর্বনিম্ন বেতন হবে ৮ হাজার ২৫০ টাকা। অবশ্য যা পরে এক পর্যায়ে ২০ হাজারের বেশিও হতে পারে। মূল বেতনের শতাংশ ধরে এটি কার্যকর হবে।

সচিব জানান, ঘোষিত পে-স্কেল অনুযায়ী সর্বোচ্চ গ্রেডের বেতন হবে ৭৮ হাজার টাকা (ফিক্সড)। দ্বিতীয় গ্রেডের ৬৬ হাজার টাকা থেকে শুরু হবে। এছাড়া তৃতীয় গ্রেড ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, চতুর্থ ৫০ হাজার টাকা থেকে, পঞ্চম ৪৩ হাজার টাকা থেকে, ষষ্ঠ ৩৫ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, সপ্তম ২৯ হাজার টাকা থেকে, অষ্টম ২৩ হাজার টাকা থেকে, নবম ২২ হাজার টাকা থেকে, দশম ১৬ হাজার টাকা থেকে, ১১তম ১২ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, ১২তম ১১ হাজার ৩০০ টাকা থেকে, ১৩তম ১১ হাজার টাকা থেকে, ১৪তম ১০ হাজার ২০০ টাকা থেকে, ১৫তম ৯ হাজার ৭০০ টাকা থেকে, ১৬তম ৯ হাজার ৩০০ টাকা থেকে, ১৭তম ৯ হাজার টাকা থেকে, ১৮তম ৮ হাজার ৮০০ টাকা থেকে, ১৯তম ৮ হাজার ৫০০ টাকা থেকে এবং ২০তম বা সর্বনিম্ন গ্রেডের বেতন ৮ হাজার ২৫০ টাকা থেকে শুরু হবে।

নতুন পে স্কেলে তিনবাহিনীর প্রধানগণ (সেনা, নৌ ও বিমান) মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সমান বেতন পাবেন (৮৬ হাজার ফিক্সড)। এছাড়া সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল বেতন পাবেন ৮২ হাজার টাকা (ফিক্সড)। মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরো জানান, এবার থেকে বাংলা নববর্ষ ভাতা শুরু হচ্ছে। সবাই ধর্মভিত্তিক ভাতা পায়।

কিন্তু সবার জন্য এবার থেকে বাংলা নববর্ষ ভাতা চালু করা হবে।

এখন থেকে প্রথম শ্রেণি বা তৃতীয় শ্রেণি থাকবে না জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এবার থেকে সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে কোনো শ্রেণিবিভাগ থাকবে না। এখন থেকে এটি বিলুপ্ত। সরকারি কর্মচারীরা এখন থেকে গ্রেড অনুযায়ী পরিচিত হবেন। প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তার জায়গায় গ্রেডভিত্তিক সত্যায়িতকরণের ক্ষমতা থাকবে। এছাড়া ক্যাডার বা নন-ক্যাডার বিষয়েও সিদ্ধান্ত হবে। অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীরা এখন থেকে ৯০ শতাংশ হারে পেনশন পাবেন বলে জানান সচিব।

এমপিওভুক্তদের জন্য নতুন পে-স্কেল কার্যকর হবে উল্লেখ করে মোশাররাফ হোসাইন ভূইয়া বলেন, পাশাপাশি এর পর্যালোচনা চলবে। কমিটির মাধ্যমে এর পর্যালোচনা হবে। বিজ্ঞানীরাও নতুন স্কেলে বেতন পাবেন বলে জানান তিনি।

নতুন পে-স্কেলে তিন বাহিনীর প্রধানের বেতনের বিষয়ে সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নৌ ও বিমান বাহিনী প্রধানের বেতন সেনাবাহিনী প্রধানের বেতনের সমান হবে। সশস্ত্রবাহিনীতে সর্বশেষ পদ হলো সৈনিক, কিন্তু তারা সর্বনিম্নে গ্রেডে বেতন পাবেন না। যারা সৈনিক নন এবং সামরিক দায়িত্বে সংশ্লিষ্ট নন, তারা সর্বনিম্ন গ্রেডে বেতন পাবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনের ব্যাপারে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা এখন প্রচলিত কাঠামোতেই বেতন পাবেন। তাদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।

তিনি আরো জানান, নতুন কাঠামোর বাস্তবায়নে আগের ব্যয়ের সঙ্গে আরো ১৫ হাজার ৯০৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা অতিরিক্ত ব্যয় হবে। নতুন পে-স্কেল বাস্তবায়ন হলে ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে বেতন বাবদ সরকারের ২৩ হাজার ৮২৮ কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয় হবে।

এবার রাজস্ব বেশি হয়েছে, পরের বছর আরো বেশি হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তাই বেতন কাঠামো বাস্তবায়নে তেমন প্রভাব পড়বে না বা সরকারকেও বেশি বেগ পেতে হবে না বলে জানান মোশাররাফ হোসাইন। তবে সাবেক ও বর্তমান সরকারি কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, অষ্টম পে-স্কেল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে স্বস্তি আনবে। তবে এই বেতন বৃদ্ধির কারণে কেউ কেউ অনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করবেন। বাড়ি ভাড়া বেড়ে যেতে পারে। জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোর প্রবণতাও দেখা দিতে পারে।

কয়েকজন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, পে-স্কেল অবশ্যই তাদের জন্য স্বস্তি আনবে। তবে এর পাশাপাশি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে মেধাকে গুরুত্ব দিতে হবে। পদায়নে যোগ্যতা বিচার করতে হবে।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এবার বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি হবে বলে মনে হয় না। বেতন বৃদ্ধির কারণে যারা অনৈতিক সুবিধা নিতে চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে সতর্ক থাকবে হবে।

এর আগে বাংলাদেশ বেতন ও চাকরি কমিশনের প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার এবং সর্বনিম্ন ৮ হাজার ২৫০ টাকা মূল ধরে গত ১৩ মে কাঠামো সুপারিশ করে সচিব কমিটি। অর্থমন্ত্রণায় প্রতিবেদনটি পর্যালোচনা করে অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় পাঠায়।

আরো জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত বেতন কমিশন গত বছরের ২১ ডিসেম্বর ১৬টি গ্রেডে বেতন কাঠামো প্রস্তাব করে। তবে এ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। পরে পাঁচ সদস্যের সচিব কমিটি ২০টি গ্রেড রাখার পক্ষে মত দেয়। আগের বেতন কাঠামোর মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের বেতন ও চাকরি কমিশন (অষ্টম কমিশন) গঠন করা হয়েছিল ২০১৩ সালের ২৪ নভেম্বর। দায়িত্ব পাওয়ার প্রায় ১৩ মাস পর তারা প্রতিবেদন দেন। ফরাসউদ্দিনের বেতন কমিশনের প্রতিবেদন পাওয়ার পর তা পর্যালোচনার জন্য মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে আহ্বায়ক করে গত ১ জানুয়ারি পাঁচ সদস্যের কমিটি করে সরকার।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০০৯ সালের ১ জুলাই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাড়ানো হয়। সে অনুযায়ী বর্তমানে সরকারি চাকরিজীবীরা সর্বনিম্ন ৪ হাজার ১০০ টাকা ও সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা ‘বেসিক’ ধরে বেতন পাচ্ছেন। এর সঙ্গে তারা পাচ্ছেন মূল বেতনের ২০ শতাংশ হারে মহার্ঘ্য ভাতা, যা ২০১৩ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর করা হয়েছে। নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের দিন থেকে এই মহার্ঘ্য ভাতা বিলুপ্ত হবে।

 

 

Published in Bangladesh Pratidin

বিশেষজ্ঞদের মত
রাষ্ট্রযন্ত্রে কাজে গতি আসবে, নিয়ন্ত্রণ করতে হবে বাজার

মাহমুদ আজহার

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন বেতন কাঠামোর ফলে রাষ্ট্রযন্ত্রে কাজের গতি আসবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, ‘বেতন বৃদ্ধির ফলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বস্তিতে কাজ করবেন। রাষ্ট্রযন্ত্রে কাজের গতি আসবে। এতে দেশের উন্নয়ন আরও ত্বরান্বিত হবে। তবে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে কোনোভাবেই যেন মুদ্রাস্ফীতি না বাড়ে। বাজারকেও স্বাভাবিক রাখতে সংশ্লিষ্টদের কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।’  সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নতুন পে-স্কেল গতকাল অনুমোদন করে মন্ত্রিসভা। এ নিয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে কথা হয় সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিবসহ সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে। আলাপকালে তারা বলেন, ‘নতুন বেতনকাঠামোর ফলে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের চাওয়া-পাওয়ার হিসাব মিলছে। এতে তারাও উৎফুল্ল। এটা তাদের ও সমাজের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তবে বেতন বৃদ্ধির কারণে সরকারের চ্যালেঞ্জ হবে বাজার স্বাভাবিক রাখা। একই সঙ্গে মূল্যস্ফীতিও নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।’ এ প্রসঙ্গে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা বাড়ানো অবশ্যই দরকার। কারণ প্রাইভেট সেক্টরের তুলনায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন খুবই কম। তবে ঢাকঢোল পিটিয়ে এভাবে বেতন বাড়ানো ঠিক নয়। এতে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। সরকারের উচিত হবে, কোনোভাবেই যেন এর প্রভাব বাজারে না পড়ে সে চেষ্টা করা। প্রতি বছরই একটি নির্দিষ্ট সময়ে বেতন বাড়ানো জরুরি। এ নিয়ে বিশেষ কোনো কমিটি বা কমিশন করার কোনো প্রয়োজন নেই।’

তিনি বলেন, ‘প্রতি বছরই নিয়ম অনুযায়ী নির্দিষ্টহারে বেতন বাড়ানো উচিত। এ জন্য সুনির্দিষ্ট কাঠামো তৈরি করতে হবে। এতে মুদ্রাস্ফীতিও কিছুটা বাড়তে পারে। সাম্প্রতিক সময়ে কিংবা কিছুদিন আগে যারা অবসরে গিয়েছেন আর এখন যারা অবসরে যাবেন তাদের মধ্যে বিশাল অঙ্কের আর্থিক পার্থক্য রয়েছে। এটাও এক ধরনের বৈষম্য।’সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, ‘নতুন বেতন কাঠামো নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করছিলেন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এটা মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হওয়ায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে এক ধরনের স্বস্তি ফিরে এসেছে। নতুন বেতন কাঠামোর ফলে তারাও উৎসাহ নিয়ে কাজ করবেন। রাষ্ট্রযন্ত্রে কাজের গতি আসবে। তবে জাতীয় বাজেটের তুলনায় বেতন খুব একটা বেশি বৃদ্ধি পায়নি।’ তিনি বলেন, ‘নতুন বেতন কাঠামোর ফলে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেলেও সমস্যা নেই। কারণ এতে ক্রয় ক্ষমতা বাড়ার পাশাপাশি ব্যবসা ভালো হবে। উৎপাদন ও কর্মসংস্থান বাড়বে। দেশীয় অর্থনীতি চাঙ্গা হবে। এতে মুদ্রাস্ফীতি বাড়ার সম্ভাবনা খুব একটা নেই। তবে কোনো সুযোগসন্ধানীরা এ নিয়ে তৎপরতা চালাতে পারে। সরকারকে শক্তহাতে হাল ধরতে হবে।’ নতুন বেতন কাঠামোকে যৌক্তিক আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘এখনো প্রাইভেট সেক্টরে বেতনভাতা অনেক বেশি। সচিব পর্যায়ে প্রাইভেট সেক্টরে এখনো ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা বেতন পায়। কিন্তু নতুন বেতন কাঠামোয় একজন সচিব পাচ্ছেন সর্বোচ্চ ৮৬ হাজার টাকা। যদিও নিম্নপর্যায়ে প্রাইভেট সেক্টরে বেতন খুবই কম। বিশেষ করে গার্মেন্ট সেক্টর কিংবা এ পর্যায়ে আরও বেতন বাড়ানো উচিত। আমার মনে হয়, নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের সঙ্গে সঙ্গে প্রাইভেট সেক্টরেও বেতন বাড়বে।’তবে নতুন পে-স্কেল ঘোষণায় মূল্যস্ফীতি বাড়বে না বলে দাবি করেছেন অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ। তিনি বলেন, ‘ঘোষিত নতুন পে-স্কেল সময়োপযোগী, যুক্তিসঙ্গত ও সঠিক’। তারমতে, ‘এবারের পে-স্কেলের তিনটি বিশেষ দিক রয়েছে। প্রথমত, নতুন পে- স্কেল ঘোষণার কারণে এবার মূল্যস্ফীতি বাড়বে না বলে আমরা মনে করি।’ ‘দ্বিতীয়ত, এর আগে ২০০৯ সালে সর্বশেষ পে-স্কেল ঘোষণা করা হয়েছিল। এরপর প্রায় ছয় বছর অতিক্রম হয়েছে। এই ছয় বছরে প্রতি বছরই মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আর এই মূল্যস্ফীতির কারণে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যেহেতু নির্দিষ্ট বেতন পান সেহেতু তাদের ক্রয় ক্ষমতা কমেছে। এ অবস্থায় তাদের এই হারিয়ে যাওয়া ক্রয় ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার একটা প্রশ্ন উঠেছে।’ ‘তৃতীয়ত, গত ছয় বছরে দেশের অর্থনীতির ভালো প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এতে একটা প্রিমিয়াম সব মহল পেয়েছে। কিন্তু নির্দিষ্ট আয়ের যারা তারা এটা পাননি। নতুন পে-স্কেলের মাধ্যমে এটা প্রদানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ অর্থ সচিব বলেন, ‘মূল্যস্ফীতি বাড়বে কিনা এটা নির্ভর করে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বর্ধিত বেতনের অর্থ কোন খাত থেকে আসবে তার ওপর।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এবার বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি হবে বলে মনে হয় না। বেতন বৃদ্ধি হওয়াটা দরকার ছিল। কেননা ছয় বছর পর নতুন পে-স্কেল এসেছে। এই সময়ের মধ্যে সরকারি চাকুরেদের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। তাই ক্রয়ক্ষমতার নিরিখে ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির আলোকে বেতন বাড়ানোটা দরকার ছিল।’তিনি বলেন, ‘বেতন বৃদ্ধির কারণে যারা অনৈতিক সুবিধা নিতে চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে। সরকারি চাকুরেদের স্বস্তি যেন না চলে যায়, সেদিকে সরকারকে নজর দিতে হবে।’

 

 

Published in Jaijaidin

সরকারি চাকুরেদের বেতন বেড়ে দ্বিগুণ
সর্বনিম্ন বেতন ৮২৫০ সর্বোচ্চ ৭৮ হাজার মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

যাযাদি রিপোর্ট

মূল বেতন দ্বিগুণ করে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য জাতীয় পে-স্কেলের অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, গ্রেড ২০টিই থাকবে। সর্বোচ্চ গ্রেডে বেতন হবে ৭৮ হাজার টাকা, কোনো ইনক্রিমেন্ট থাকবে না, ফিক্সড। সর্বনিম্ন বেতন হবে ৮ হাজার ২৫০ টাকা। অবশ্য যা পরে একপর্যায়ে ২০ হাজারের বেশিও হতে পারে। মূল বেতনের শতাংশ ধরে এটি কার্যকর হবে। এছাড়া সিলেকশন গ্রেড অব্যাহত থাকবে না জানিয়ে সচিব বলেন, বেতন সবার জন্য বাড়ছে। কাজেই কিছু পদ বা প্রতিষ্ঠানের জন্য সুবিধা দেয়ার চেয়ে সবাইকে সুবিধা দেয়াই যৌক্তিক। উল্লেখ্য, বর্তমান বেতন স্কেল অনুযায়ী সর্বনিম্ন বেতন ছিল ৪ হাজার ১০০ এবং সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা।

এবার থেকে সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে কোনো শ্রেণিবিভাগ থাকবে না উল্লেখ করে সচিব বলেন, এটি একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত। এখন থেকে এটি বিলুপ্ত। প্রথম শ্রেণি বা তৃতীয় শ্রেণি বলে কিছু থাকবে না। সরকারি কর্মচারীরা এখন থেকে গ্রেড অনুযায়ী পরিচিত হবেন। তাদের জন্য এটি হবে মনস্তাত্তি্বক সাপোর্ট। সত্যায়িত করার ক্ষমতার বিষয়টি উল্লেখ করে সচিব বলেন, বিষয়সহ শ্রেণি অনুযায়ী যেসব কাজ, সেগুলোতে পরিবর্তন আনা হবে। ঘুণেধরা কোনো কিছু থাকবে না। প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তার জায়গায় গ্রেডভিত্তিক সত্যায়িতকরণের ক্ষমতা থাকবে।

এছাড়া ক্যাডার বা নন-ক্যাডার বিষয়েও সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তিনি। পাশাপাশি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীরা এখন থেকে ৯০ শতাংশ হারে পেনশন পাবেন।

এমপিওভুক্তদের জন্য নতুন পে-স্কেল কার্যকর হবে উল্লেখ করে তা পর্যালোচনার কথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। তিনি বলেন, কমিটির মাধ্যমে এর পর্যালোচনা হবে। তবে এমপিওভুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নতুন স্কেলে বেতন পাবেন, পাশাপাশি এর পর্যালোচনাও চলবে।

এই পে-স্কেলের বাস্তবায়ন ১ জুলাই-২০১৫ থেকে ধরা হবে জানিয়ে অর্থ বিভাগে এখন এর খুঁটিনাটি বিষয়গুলো পর্যালোচনা হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

ঘোষিত পে-স্কেল অনুযায়ী সর্বোচ্চ গ্রেড প্রথম গ্রেডের বেতন হবে ৭৮ হাজার টাকা (ফিক্সড)। দ্বিতীয় গ্রেড ৬৬ হাজার টাকা থেকে শুরু হবে। এছাড়া তৃতীয় গ্রেড ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, চতুর্থ ৫০ হাজার টাকা থেকে, পঞ্চম ৪৩ হাজার টাকা থেকে, ষষ্ঠ ৩৫ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, সপ্তম ২৯ হাজার টাকা থেকে, অষ্টম ২৩ হাজার টাকা থেকে, নবম ২২ হাজার টাকা থেকে, দশম ১৬ হাজার টাকা থেকে, ১১তম ১২ হাজার ৫০০ টাকা থেকে, ১২তম ১১ হাজার ৩০০ টাকা থেকে, ১৩তম ১১ হাজার টাকা থেকে, ১৪তম ১০ হাজার ২০০ টাকা থেকে, ১৫তম ৯ হাজার ৭০০ টাকা থেকে, ১৬তম ৯ হাজার ৩০০ টাকা থেকে, ১৭তম ৯ হাজার টাকা থেকে, ১৮তম ৮ হাজার ৮০০ টাকা থেকে, ১৯তম ৮ হাজার ৫০০ টাকা থেকে এবং ২০তম বা সর্বনিম্ন গ্রেডের বেতন ৮ হাজার ২৫০ টাকা থেকে শুরু হবে।

নতুন পে-স্কেলে তিন বাহিনীর প্রধান (সেনা, নৌ ও বিমান) সমান বেতন পাবেন (৮৬ হাজার ফিক্সড)। এছাড়া সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট জেনারেল বেতন পাবেন ৮২ হাজার টাকা (ফিক্সড)।

এ ব্যাপারে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নৌ ও বিমানবাহিনী প্রধানের বেতন সেনাবাহিনী প্রধানের বেতনের সমান হবে। সশস্ত্র বাহিনীতে সর্বশেষ পদ হলো সৈনিক, কিন্তু তারা সর্বনিম্নে গ্রেডে বেতন পাবেন না। যারা সৈনিক নন এবং সামরিক দায়িত্বে সংশ্লিষ্ট নন, তারা সর্বনিম্ন গ্রেডে বেতন পাবেন।

ঘোষিত স্কেলের মূল বেতন ১ জুলাই-২০১৫ থেকে এবং ভাতাগুলো ১ অক্টোবর-২০১৬ থেকে কার্যকর হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। এদিকে নতুন কাঠামোর বাস্তবায়নে আগের ব্যয়ের সঙ্গে আরো ১৫ হাজার ৯০৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা অতিরিক্ত ব্যয় হবে বলে জানান সচিব।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনের ব্যাপারে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা এখন প্রচলিত কাঠামোতেই বেতন পাবেন। তাদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কমিটি রয়েছে, তারা এ বিষয়ে পর্যালোচনা করে প্রতিবেদন জানাবেন। প্রতিবেদন পরে কেবিনেটে এলে সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত হবে।

এ সময় অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব গ্রেড ওয়ানে পড়বেন। তিনি ফিক্সড বেতন পাবেন। সরকারি কর্মচারীরা পদোন্নতি পেলে তার গ্রেড বদল হবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

এছাড়া এ মুহূর্তে স্থায়ী পে-কমিশন গঠনের প্রয়োজন নেই বলেও জানান সচিব। তিনি বলেন, মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

নতুন পে-স্কেল বাস্তবায়ন হলে ২০১৫-১৬ অর্থবছর থেকে বেতন বাবদ সরকারের ২৩ হাজার ৮২৮ কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয় হবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘এবার রাজস্ব বেশি হয়েছে, পরের বছর আরো বেশি হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তাই বাস্তবায়নে তেমন প্রভাব পড়বে না বা সরকারকেও বেশি বেগ পেতে হবে না।

অবসরের সময়সীমার বিষয়টি আগে যা ছিল, এখনো তাই রয়েছে বলে জানান সচিব।

বিজ্ঞানীরাও নতুন স্কেলে বেতন পাবেন উল্লেখ করে সচিব বলেন, এছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠান যদি বিজ্ঞানভিত্তিক কার্যক্রমের উদ্যোগ নেয় বা পরিচালনা করে, তাদের আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হবে, যার কোনো সীমা নেই।

 

চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ

এদিকে, সাবেক ও বর্তমান সরকারি কর্মকর্তা ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, অষ্টম পে-স্কেল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে স্বস্তি আনবে। এটা তাদের ও সমাজের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তবে এই বেতন বৃদ্ধির কারণে সরকারের মূল চ্যালেঞ্জ হবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখা।

অবশ্য তারা মনে করেন, পে-স্কেল হওয়ার পর কেউ কেউ অনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করবেন। বিশেষ করে কোনো কোনো বাড়িওয়ালা অতীতে পে-স্কেল হওয়ার পর বাড়িভাড়া বাড়িয়েছেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোর প্রবণতাও দেখা গেছে। সরকার ও বিভিন্ন সংস্থাকে এ ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। এ ধরনের অনৈতিক সুবিধা নেয়ার প্রবণতা বন্ধ করা গেলে পে-স্কেলের সুফল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যেমন পাবেন, সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষও পাবেন।

সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, নতুন পে-স্কেল অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার করবে। সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির কারণে তাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়বে। ফলে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন স্তরও এর সুবিধা পাবে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জীবনযাপনে স্বাচ্ছন্দ্য আসবে। এটি তাদের জন্য খুবই ইতিবাচক হবে।

আলী ইমাম বলেন, বেতন বৃদ্ধির কোনো অপকারিতা নেই। কিন্তু দেখা যায় কেউ না কেউ এর কারণে অনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করবে। এটা রুখতে হবে।

কয়েকজন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, পে-স্কেল অবশ্যই তাদের জন্য স্বস্তি আনবে। তবে এর পাশাপাশি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে মেধাকে গুরুত্ব দেয়া, পদোন্নতির ক্ষেত্রে রাজনৈতিক পরিচয় বিবেচনায় না এনে যদি কর্মকর্তার যোগ্যতাকে গুরুত্ব দেয়া হয়, তবে এর প্রভাব শতভাগ ইতিবাচক হবে।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এবার বেতন বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি হবে বলে মনে হয় না। বেতন বৃদ্ধি হওয়াটা দরকার ছিল। কেননা ছয় বছর পর নতুন পে-স্কেল এসেছে। এই সময়ের মধ্যে সরকারি চাকুরেদের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। তাই ক্রয়ক্ষমতার নিরিখে ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির আলোকে বেতন বাড়ানোটা দরকার ছিল।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক বলেন, বেতন বৃদ্ধির কারণে যারা অনৈতিক সুবিধা নিতে চেষ্টা করবে, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে। সরকারি চাকুরেদের স্বস্তি যেন না চলে যায়, সেদিকে সরকারকে নজর দিতে হবে।

 

 

Published in Shokaler Khobor

পে-স্কেল ইতিবাচক, চ্যালেঞ্জ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ

এসএম আলমগীর

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর নতুন পে-স্কেল ইতিবাচক হলেও মূল্যস্ফীতির চাপ বাড়বে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ও বাজার বিশ্লেষকরা। তারা বলেন, ছয় বছর সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়েনি। এতে তাদের ক্রয়ক্ষমতা কমে গিয়েছিল। এজন্য অষ্টম পে-স্কেল সময়োপযোগী হয়েছে। কিন্তু পে-স্কেলের কারণে মূল্যস্ফীতি বাড়তে পারে। আর এ মূল্যস্ফীতির চাপ সামলানোই সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে। মন্ত্রিপরিষদ গতকাল অষ্টম পে-স্কেল অনুমোদন করার পর সকালের খবরের সঙ্গে আলাপকালে অর্থনীতিবিদ ও বাজার বিশ্লেষকরা এসব কথা বলেন।

তারা আরও বলেন, মূল্যস্ফীতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়িভাড়া ও যাতায়াত খরচসহ আনুষঙ্গিক ব্যয় বেড়ে যাবে। বাজারে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে পণ্যমূল্য বাড়াতে পারে। এজন্য সরকারকে বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করা দরকার।

অবশ্য অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ বলেছেন, নতুন পে-স্কেল ঘোষণায় কোনো মূল্যস্ফীতি বাড়বে না। গতকাল মন্ত্রিসভায় নতুন পে-স্কেল অনুমোদন হওয়ার পর তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন।

এ প্রসঙ্গে সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার বলেন, নতুন পে-স্কেলকে আমি খুবই ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। এতে জীবনযাত্রার ব্যয় হয়তো কিছুটা বাড়বে, কিন্তু বেতন বাড়ানো খুবই দরকার ছিল। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সরকার নিয়োগ দেয় রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের জন্য। তারা যাতে চিন্তাহীনভাবে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে পারেন তার জন্য সরকারের উচিত ভালো বেতন দেওয়া। দীর্ঘদিন বেতন বাড়েনি সরকারি চাকরিজীবীদের। এখন বেড়েছে। এটা সরকারের খুবই সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বলে আমি মনে করি। তিনি আরও জানান, বিভিন্ন বেসরকারি খাতের চেয়ে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন এখনও অনেক কম। বেসরকারি ব্যাংকের একজন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কত বেতন পান? ডিএমডি কত বেতন পান? তারা প্রচুর বেতন পান। তাদের সমতুল্য বেতন কি সরকারের উচ্চপদের কর্মকর্তারা পান, পান না। সুতরাং বেসরকারি খাতের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন কাঠামো বাড়ানোয় আমি মনে করি সরকারি কাজে আরও গতি আসবে এবং সরকারি খাতে দুর্নীতি কমবে।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) নির্বাহী পরিচালক প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির প্রয়োজন ছিল। কেন ছয় বছর বেতন বাড়েনি সরকারি চাকরিজীবীদের? এই ছয় বছরে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে, জীবনযাত্রায় ব্যয় বেড়েছে। উল্টো সরকারি চাকরিজীবীদের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হিমশিম খেতে হতো। তাই ক্রয়ক্ষমতার নিরিখে ও দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির আলোকে বেতন বাড়ানোটা দরকার ছিল।

প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, সরকারি বিভিন্ন খাতে দুর্নীতি হয়। সাধারণত বলা হয়, বেতন কম থাকায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অসত্ পথের দিকে ঝুঁকেন। কিন্তু নতুন পে-স্কেলে বেতন প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে এবং বৈশাখী উত্সব বোনাসসহ আরও কিছু বাড়তি সুবিধা দেওয়া হয়েছে। সুতরাং আমি মনে করি এখন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আর অসত্ পথে যাওয়ার দরকার পড়বে না। তবে সরকারি খাতে নিয়োগের ক্ষেত্রে এখন দুর্নীতি বাড়তে পারে। সরকারকে সেদিকে নজর দিতে হবে। তিনি আরও জানান, সাধারণত দেখা যায় সরকার নতুন পে-স্কেল ঘোষণা করলেই বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়। অসাধু ব্যবসায়ীরা এ সুযোগে ফায়দা নিতে চায়। পে-স্কেলের কারণে মূল্যস্ফীতি কিছুটা বাড়তে পারে। তবে পণ্যের দাম বৃদ্ধিরও কোনো কারণ নেই। যদি বাড়ে তাহলে সেটা ব্যবসায়ীদের কারসাজির কারণেই বাড়বে। আর এ কারসাজি ঠেকানোর দায়িত্ব সরকারের। এসব কারণে মূল্যস্ফীতি বাড়লে তা ঠেকানোই সরকারের জন্য চ্যালেঞ্জ হবে।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, বেতন বৃদ্ধির কারণে অর্থনীতির ওপর খুব বেশি প্রভাব পড়বে না। বেতন বৃদ্ধিতে জাতীয় বাজেটের ওপরও তেমন প্রভাব পড়বে না। তবে বাজেট সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করার দরকার রয়েছে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বাড়ানোর প্রয়োজন ছিল। এর ফলে তাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়বে। তার জন্য হয়তো মূল্যস্ফীতির ওপর কিছুটা চাপ পড়বে। বাড়িভাড়া বাড়তে পারে এবং যাতায়াতসহ আরও কিছু ব্যয় বাড়তে পারে। কিন্তু সেগুলো জনজীবনে খুব বেশি নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। তিনি বলেন, মূল্যস্ফীতি কিছুটা বাড়লেও খোঁড়া অজুহাতে যাতে ব্যবসায়ীরা বাজার অস্থিতিশীল করতে না পারে সেদিকটাতে সরকারের নজর দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে আমি মনে করি বাজারে নজরদারি বাড়ানো দরকার। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে মনিটরিং সেল করে এখন নিয়মিত বাজার তদারকি করা দরকার। তা না হলে পে-স্কেলের কারণে যেটুকু মূল্যস্ফীতি বাড়বে তা নিয়ন্ত্রণ করা চ্যালেঞ্জ হয়ে যাবে। এদিকটায় সরকারকে ভালোভাবে নজর দেওয়া দরকার বলে আমি মনে করি।

এদিকে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) পক্ষ থেকে বলা হয়েছে-নতুন পে-স্কেলের কারণে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাবে, বাড়িভাড়া বাড়বে, রিকশাভাড়া, পরিবহন ব্যয়-সবকিছুই বাড়বে। এক কথায় জীবনযাত্রায় ব্যয় বেড়ে যাবে। প্রতিষ্ঠানটির কো-অর্ডিনেটর আহমেদ একরামুল্লাহ বলেন, এমনিতেই বর্ষার কারণে এখন বাজার অস্থিতিশীল। পিঁয়াজ-মরিচসহ সব ধরনের সবজির দাম আকাশছোঁয়া। চাল, ডালসহ অন্যান্য পণ্যের দামও চড়া। এ কারণে সাধারণ মানুষকে অনেক কষ্টে জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এখন সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়ায় সাধারণ মানুষের কষ্ট বাড়বে। অর্থাত্ অসহায় ভোক্তার অসহায়ত্ব আরও বেড়ে যাবে। তিনি জানান, সরকার নতুন পে-স্কেল চূড়ান্তকরণের বিষয়টি বেশ কয়েক মাস ধরেই ঝুলিয়ে রেখেছিল। এখন যেহেতু বর্ষার কারণে দ্রব্যমূল্য এমনিতেই বেশি, সেহেতু বর্ষা যাওয়ার পরও সরকার এটা চূড়ান্ত করতে পারত। তাহলে হয়তো বাজারে কিছুটা প্রভাব কম পড়ত।

সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়লে সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়ে বাড়িভাড়ার ক্ষেত্রে। এমনিতেই জানুয়ারি মাস এলেই ঢাকার বাড়িমালিকরা দেদার বাড়িভাড়া বৃদ্ধি করেন। অনেকেই বছরে দু’বারও বাড়ান। এখন বাড়িমালিকরা বাড়িভাড়া আরও বেশি বাড়াবেন। সুতরাং ২১ লাখ সরকারি চাকরিজীবীর কারণে ভুগতে হবে সবাইকে। আহমেদ একরামুল্লাহ বলেন, অবশ্য সরকার পে-স্কেল চূড়ান্ত করায় এখন তো কারও কিছুই করার নেই। পে-স্কেলের কারণে জীবনযাত্রার ব্যয় যাতে না বাড়ে, বাজার যাতে অস্থিতিশীল না হয়, বাড়িমালিকরা যেন বেশি বেপরোয়া না হয়-এ বিষয়গুলোও দেখার দায়িত্ব সরকারের। এ ক্ষেত্রে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে মুখ্য ভূমিকা পালন করতে হবে। সেই সঙ্গে টিসিবিকে কার্যকর করতে হবে। যাতে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কোনো পণ্যের দাম বাড়ালে সরকারি টিসিবির মাধ্যমে দ্রুত সে পণ্য কিনে বাজারে ছাড়তে পারে। সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা ঠিক রেখে পে-স্কেল বাস্তবায়ন করতে পারলে কোনো সমস্যা নেই।

Comments

Check Also

SDG-16-in-the-Bangladesh-Context-04

Press reports: citizen dialogue on SDG 16 in the Bangladesh Context

A citizen dialogue titled SDG 16 in the Bangladesh Context: Peace and Security, Human Rights …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *